রুট পারমিট ছাড়া কোন বাস চলবে না: মেয়র তাপস

নিজস্ব প্রতিবেদক:নিজস্ব প্রতিবেদক:
প্রকাশিত: ৫:২৭ অপরাহ্ণ, ২৬/১২/২০২১

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস বলেছেন, ঢাকা শহরে রুট পারমিট ছাড়া কোন বাস চলাচল করতে দেয়া হবে না। ঢাকা শহরে চলাচল করার জন্য যেসব রুটে পরিবহন মালিকরা পারমিট নিয়েছেন সেই রুটেই বাস পরিচালনা করতে হবে। পারমিটের বাইরে কোনো পরিবহন অন্য রুট ব্যবহার করতে পারবে না।

রাজধানী ঢাকার সড়কে শৃঙ্খলা আনতে এবং যাত্রীদের ভোগান্তি কমাতে পরীক্ষামূলকভাবে চালু হয়েছে ‘ঢাকা নগর পরিবহন’ সার্ভিস। রবিবার (২৬ ডিসেম্বর) বেলা ১২টার দিকে রাজধানীর মোহাম্মদপুর বাসস্ট্যান্ডের বিআরটিসি ডিপোতে এক অনুষ্ঠানে এই বাস সার্ভিসের উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধনস্থলে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম। আর সচিবালয় থেকে ভার্চুয়ালি প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তাপস বলেন, ‘পর্যায়ক্রমে রাজধানীর সব রুটে ঢাকা নগর পরিবহন পরিচালিত হবে। আমাদের আরও কাজ বাকি আছে। রাজধানীর বাইরের বাসের জন্য শহরের বাইরে বাস টার্মিনাল করব। যেন বিভিন্ন জেলা থেকে আসা বাস আর শহরের মধ্যে ঢুকতে না পারে।’

ঢাকায় যানজট নিরসন এবং গণপরিবহনে শৃঙ্খলা আনতে পরীক্ষামূলকভাবে ঢাকা নগর পরিবহন চালু করেছে বাস রুট রেশনালাইজেশন কমিটি। এই পরিবহন ঢাকার কেরানীগঞ্জের ঘাটারচর থেকে নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুর পর্যন্ত যাত্রী পরিবহন করবে।

বাস রুট রেশনালাইজেশন কমিটির আহ্বায়ক ও ডিএসসিসির মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস সড়কে আর কাউকে যাতে ছাড় না দিতে ঢাকা মহানগর পুলিশকে অনুরোধ জানান। যে বাস যে রুটের, সে রুটে চলতে হবে। এর বাইরে যাওয়া যাবে না। পর্যায়ক্রমে ঢাকার সব বাসকে রুট রেশনালাইজেশনের আওতায় আসতে হবে।

তিনি বলেন, এখন ঘাটারচর থেকে নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুর পর্যন্ত ৫০টি বাস দেয়া হয়েছে, শিগগিরই আরও ৫০টি বাস যোগ হবে। পরবর্তী সময়ে যাত্রী চাহিদা বিবেচনা করে বাসের সংখ্যা বাড়ানো হবে।

Nagad

মেয়র বলেন, ‘আগে বাসচালকদের সম্মান দেয়া হতো না। সবাই গালি দিতো। আজ তারা সম্মানিত হয়েছেন, তারা নির্দিষ্ট পোশাক পেয়েছেন, কোম্পানি থেকে বেতন পাচ্ছেন। চালকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘যাত্রী ওঠানামায় আর ঠেলাঠেলি নয়। নির্দিষ্ট কাউন্টার থেকে যাত্রী ওঠাতে হবে। এজন্য যাত্রীদের টিকিট নিতে হবে। টিকিট ছাড়া যাত্রী পরিবহন করা যাবে না। যত্রতত্র যাত্রী ওঠানামা করা যাবে না।’

এই নব সূচনা প্রয়াত মেয়র আনিসুল হককে উৎসর্গ করে মেয়র তাপস বলেন, বাস রুট রেশনালাইজেশন বা কোম্পানির মাধ্যমে গণপরিবহন চালুর স্বপ্ন দেখেছিলেন মেয়র আনিসুল হক। আজ আমরা তার স্বপ্ন বুকে ধারণ করে এই নব সূচনা শুরু করেছি। পর্যায়ক্রমে ঢাকার অন্যান্য রুটে কোম্পানির মাধ্যমে পরিচালনা করা হবে।

নগর পরিবহন উদ্বোধনকালে মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমি গত ১২ দিন হাসপাতালে ছিলাম। সেখানে থেকে রিলিজ হয়ে বাসায় না গিয়ে সরাসরি মন্ত্রণালয়ে এসেছি। আমি এই উদ্যোগটাকে গুরুত্ব দিয়েছি। আমার উপস্থিতিতে সেটা পরিষ্কার হয়ে যাবে। আমি এই সার্ভিসের শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করলাম।’

সিটি করপোরেশন সূত্রে জানা গেছে, এই রুটের সর্বনিম্ন ভাড়া ১০ টাকা, সর্বোচ্চ ভাড়া ৫৯ টাকা এবং প্রতি কিলোমিটার দুই টাকা ১৫ পয়সা। কেউ এক স্টেশন থেকে উঠে পরের স্টেশনে নামলে তাকে ১০ টাকা ভাড়া দিতে হবে। আবার এই সর্বনিম্ন ভাড়াতেই তিনি প্রায় সাড়ে চার কিলোমিটারের বেশি পথ যেতে পারবেন। যেকোনো যাত্রী ১০ টাকার সমান দূরত্ব অতিক্রম করলে তাকে পরবর্তী দূরত্বের জন্য প্রতি কিলোমিটার ২.১৫ টাকা হিসেবে ভাড়া দিতে হবে।

এর আগে গত ১৯ ডিসেম্বর ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নগর ভবনে বাস রুট রেশনালাইজেশন কমিটির ২০তম সভা শেষে ২৬ ডিসেম্বর থেকে নগর পরিবহন শুরু হওয়ার কথা জানিয়েছিলেন মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।

২০১৫ সালে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক রুটভিত্তিক কোম্পানির অধীনে ঢাকার গণপরিবহন চালানোর উদ্যোগ নিয়েছিলেন। ২০১৭ সালের ৩০ নভেম্বর আনিসুল হক মারা যাওয়ার পর বাস রুট র‌্যাশনালাইজেশন কার্যক্রম থেমে যায়, যা পুনরায় ঢাকার দুই মেয়রের নেতৃত্বে প্রাণ পেয়েছে।

এছাড়া ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম, ডিটিসিএর নির্বাহী পরিচালক নিলীমা আক্তার, সংসদ সদস্য সাদেক খান, বিআরটিসি চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম ও ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্যাহ উপস্থিত ছিলেন।

সারাদিন/২৬ ডিসেম্বর/ আরএ