বেসিস আউটসোর্সিং অ্যাওয়ার্ডের রেজিস্ট্রেশন শুরু

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়ার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) উদ্যোগে সপ্তমবারের মতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বেসিস আউটসোর্সিং অ্যাওয়ার্ড ২০২১। এবারের আসরে বিভিন্ন ক্যাটাগোরিতে ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে মোট ১০০টি পুরস্কার দেয়া হবে।

এ সময় জানানো হয়, বাংলাদেশে আউটসোর্সিং কাজে নিয়োজিত ব্যক্তি/ প্রতিষ্ঠানসমূহের জন্য বেসরকারি খাতের সবচেয়ে বড় আয়োজন এই বেসিস আউটসোর্সিং অ্যাওয়ার্ড। আউটসোর্সিংয়ের সাথে যারা সম্পৃক্ত তাদের উৎসাহিত করার লক্ষ্যে বেসিসের পক্ষ থেকে প্রতি বছর এই পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানটি আয়োজন করা হয়।

বুধবার (২৭ অক্টোবর) রাজধানীর কারওয়ান বাজারে বেসিস অডিটরিয়ামে এবারের আউটসোর্সিং অ্যাওয়ার্ডের বিস্তারিত তুলে ধরেন বেসিস সভপতি সৈয়দ আলমাস কবীর।

সৈয়দ আলমাস কবীরের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বেসিসের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি ফারহানা এ রহমান, আউটসোর্সিং অ্যাওয়ার্ড ২০২১ এর আহ্বায়ক ও বেসিস পরিচালক রাশাদ কবির, বেসিসের সহ-সভাপতি মুশফিকুর রহমান, ব্যাংক এশিয়ার সিনিয়র কার্যনির্বাহী সহ-সভাপতি ও আন্তর্জাতিক বিভাগীয় প্রধান জিয়া আরফিন।

সংবাদ সম্মেলনের শুরুতেই রাশাদ কবির আউটসোর্সিং অ্যাওয়ার্ড ২০২১ এর আয়োজনের উদ্দেশ্য ও প্রস্তুতিবিষয়ক নানা দিক তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, এই অ্যাওয়ার্ডের অংশ নেয়ার জন্য ২৮ অক্টোবর থেকে নিবন্ধন শুরু হবে। আউটসোর্সিংয়ের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তি এবং প্রতিষ্ঠান এতে অংশ নেয়ার জন্য বিনামূল্যে নিবন্ধন নিতে পারবেন। নিবন্ধন চলবে ১১ নভেম্বর পর্যন্ত। চূড়ান্ত বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হবে নভেম্বরের শেষ সপ্তাহে।

Nagad

বেসিসের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি ফারহানা এ রহমান জানান, বিচারকরদের মাধ্যমে যাচাই-বাছাই করে দুইটি ভাগে মো ১০০টি পুরস্কার প্রদান করা হবে। এর মধ্যে প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে থাকবে ২০ টি পুরস্কার এবং ব্যক্তি পর্যায়ে থাকবে ৮০টি পুরষ্কার । প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে, আউটসোর্সিং প্রতিষ্ঠান বিভাগে ৫টি, স্টার্ট আপ বিভাগে ৫টি এবং এক্সপোর্ট এক্সিলেন্স বিভাগে ১০টি পুরষ্কার থাকবে। আর ব্যক্তি পর্যায়ে ৬৪ জেলায় ৬৪ জনকে, ব্যক্তি নারী বিভাগে ৬ জনকে এবং আউটসোর্সিং প্রফেশনাল বিভাগে সেরা ১০ জনকে পুরস্কার প্রদান করা হবে ।

তিনি জানান, ঘরে বসে প্রত্যন্ত এলাকা থেকে যারা কাজ করছেন তাদেরকে দৃশ্যমান করা ও স্বীকৃতি প্রদান, রপ্তানিতে তাদের অবদান তুলে ধরা, ব্যক্তিগতভাবে যারা ফ্রিল্যান্সিং করছেন তারা যাতে কোম্পানি তৈরির মাধ্যমে উদ্যোক্তা হতে পারেন সেটাই এই আয়োজনের অন্যতম উদ্দেশ্য। বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীর তার বক্তৃতায় বলেন, সরকার ২০২৫ সাল নাগাদ ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে। বণিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে ইতিমধ্যে এ খাতে অর্জিত আয়ের উপর ১০% নগদ প্রণোদনা চালু করেছে। নতুন নতুন বাজার খুঁজে বের করার জন্য সরকারের সাথে বেসিস একাত্ম হয়ে কাজ করছে। আন্তর্জাতিক বাজার সম্প্রসারণে নতুন নতুন পণ্য ও সেবা উদ্ভাবনের পাশাপাশি আমাদের দক্ষতা উন্নয়নে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগ আরও জোরদার করতে হবে। ডিজিটাল বাংলাদেশ রূপকল্প বাস্তবায়নে যেসব বিষয়ে ইতিমধ্যে আমাদের দেশিয় সফটওয়্যার ও সফটওয়্যার পরিষেবা সফলভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে তা পৃথিবীর অন্যান্য দেশের কাছে নিয়ে যেতে হবে।

ব্যাংক এশিয়ার ব্যাংক এশিয়ার সিনিয়র কার্যনির্বাহী সহ-সভাপতি ও আন্তর্জাতিক বিভাগীয় প্রধান জিয়া আরফিন বলেন, প্রতিবছর বেসিস আউটসোসিং অ্যাওয়ার্ড আয়োজনের জন্য বেসিসকে ধন্যবাদ। ব্যাংক এশিয়া প্রায় শুরু থেকেই এ আয়োজনের সাথে সম্পৃক্ত রয়েছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে। আমি বিশ্বাস করি এ আয়োজনের মাধ্যমে একদিকে যেমন তথ্যপ্রযুক্তি খাতের রপ্তানি বৃদ্ধি পাবে অন্যদিকে তেমনি দেশের প্রায় সকল জেলা ও প্রত্যন্ত এলাকায় অনলাইনে আউটসোসিং-এ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে উৎসাহিত করবে।

বেসিস আউটসোর্সিং অ্যাওয়ার্ড ২০২১ এর প্লাটিনাম স্পন্সর হিসেবেব্যাংক এশিয়া। সহযোগী হিসেবে আছে আইসিটি বিজনেস প্রমোশনাল কাউন্সিল ও মাস্টারকার্ড বাংলাদেশ।

প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়ার জন্য নিবন্ধন করা যাবে এই ওয়েবসাইটে: https://outsourcingaward.basis.org.bd

সারাদিন/২৭ অক্টোবর/ এসআর