বারিধারা মাদ্রাসা থেকে মুফতি মনির ও হাবীবুল্লাহ মাহমুদকে বহিষ্কার

নিজস্ব প্রতিবেদকনিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৬:৪০ অপরাহ্ণ, ১০/০৬/২০২১

মুফতি মনির হোসাইন ও মাওলানা হাবীবুল্লাহ মাহমুদ (বাঁ থেকে)। ছবি: সংগৃহীত

হেফাজতে ইসলাম ইস্যুতে বিতর্কিত দুই শিক্ষককে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করেছে রাজধানী ঢাকার জামিয়া মাদানিয়া বারিধারা মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ। মাদ্রাসার মুহতামিম মুফতি মনির হোসাইন কাসেমী ও মুহাদ্দিস মাওলানা হাবীবুল্লাহ মাহমুদ কাসেমীকে প্রতিষ্ঠানটি থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির মজলিসে শুরার বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বুধবার (১০জুন) বারিধারা মাদ্রাসা সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

শুরার বৈঠকে তাদেরকে বহিষ্কারের কারণ হিসেবে ‘রাষ্ট্রবিরোধী কার্যকলাপ, হেফাজত ইস্যুতে বিতর্কিত হওয়া ও কারাদণ্ডপ্রাপ্ত হওয়া’ উল্লেখ করা হয়েছে। ওই দুজনের পদে বর্তমান নায়েবে মুহতামিম মাওলানা মাসউদ আহমদ ভারপ্রাপ্ত মুহতামিম হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

গত ৭ জুন মাদানি সোসাইটি বাংলাদেশের পরিচালনা কমিটির সভাপতি বদিউর রহমানের সভাপতিত্বে বাদ আছর মাদ্রাসা কার্যালয়ে শুরা কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে বেশ কয়েকটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এরমধ্যে একটি হচ্ছে – মুহতামিম মুফতি মনির হোসাইন কাসেমী ও মুহাদ্দিস মুফতি হাবিবুল্লাহ মাহমুদ কাসেমীকে প্রতিষ্ঠানটির সব পদ থেকে স্থায়ীভাবে অব্যাহতি।

মজলিসে শুরার রেজুলেশনে উল্লেখ করা হয়, ‘জামিয়ার মুহতামিম মুফতি মনির হোসাইন কাসেমী সাম্প্রতিককালে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রবিরোধী কার্যকলাপ, হেফাজতে ইসলাম ইস্যুতে বিতর্কিত হয়ে যাওয়া এবং বিভিন্ন মামলায় এজাহারভুক্ত আসামি হয়ে কারাবন্দি থাকায় মজলিসে শুরা কর্তৃক সর্বসম্মতিক্রমে জামিয়ার মুহতামিম পদসহ অন্যান্য সকল পদ থেকে স্থায়ীভাবে অব্যাহতি প্রদান করা হলো।

Nagad

মুফতি হাবীবুল্লাহ মাহমুদ কাসেমীকে অব্যাহতিদানের কারণ প্রসঙ্গে বলা হয়, তিনি সম্প্রতিকালে বিভিন্ন বিতর্কিত বক্তব্য প্রদান করেছেন৷ বিভিন্ন মামলার এজাহারভুক্ত আসামি হয়ে কারাবন্দি হওয়ায় মজলিসে শুরা কর্তৃক সর্বসম্মতিক্রমে তাকেও স্থায়ীভাবে অব্যাহতি প্রদান করা হয়েছে।

শুরা কমিটির অন্যতম সদস্য ও বারিধারা মাদ্রাসার শিক্ষাসচিব মুফতি মকবুল হোসাইন কাসেমী বলেন, তারা দুইজন এমন কিছু রাজনৈতিক বক্তব্য ও কাজের সঙ্গে নিজেদের জড়িয়ে ফেলেছেন, যাতে প্রতিষ্ঠানের শৃঙ্খলা ও নিরাপত্তা এবং প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে শুরা কমিটিকে এই সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে।

সারাদিন/১০জুন/ আর