শিলপাটা দিয়ে মাকে হত্যার অভিযোগে ছেলে-স্ত্রী আটক

নওগাঁর আত্রাইয়ে পারিবারিক কলহের জেরে মা জাহিদাকে (৬০) শিলপাটা দিয়ে আঘাত করে হত্যার পর গোপনে কবর দেওয়ার প্রস্তুতি চলার সময় ছেলে ও ছেলের স্ত্রীকে আটক করেছে পুলিশ। শুক্রবার ভোর রাতে উপজেলার দিঘা গ্রামের মৈত্রীপাড়ায় এ ঘটনাটি ঘটেছে। আটকৃতরা হলেন, জাহিদার ছেলে জাহিদুল ইসলাম ও জাহিদুলের স্ত্রী রহিমা খাতুন। নিহত জাহিদা দিঘা গ্রামের মৃত হারান প্রামাণিকের স্ত্রী।

আত্রাই থানার ওসি আবুল কালাম আজাদ জানান, শুক্রবার ভোর রাতে তাদের গ্রামের বাড়িতে পারিবারিক কলহের জেরে বাকবিতণ্ডা শুরু হয়। এমতাবস্থায় মা জাহিদাকে শীলপাটা দিয়ে মাথায় আঘাত করেন তার ছেলে জাহিদুল ইসলাম ও তার স্ত্রী রহিমা খাতুন। এতে তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান জাহিদা। এরপর কাউকে না জানিয়ে মা জাহিদা স্বাভাবিকভাবে মারা গেছে বলে প্রচার করে ছেলে জাহিদুল। এ সময় নিজ আত্নীতদের ছাড়া স্থানীয়দের মরদেহ দেখতেও দেননি। এদিকে জাহিদুল তার মাকে কবর দেওয়ার প্রস্তুতি গ্রহণ করেন। এতে প্রতিবেশীদের সন্দেহ দেখা দেয় জাহিদুলের চলাফেরা ও কথোপকথনে। এমতাবস্থায় প্রতিবেশীরা জোর করে জাহিদার মরদেহ দেখে মাথায় আঘাতের চিহ্ন দেখতে পান। ঘটনাটি জানতে পেরে প্রতিবেশীরা পুলিশে সংবাদ দেন।

ওসি আরও জানান, ঘটনাস্থলে গিয়ে জাহিদার মাথায় আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। এ সময় প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের ছেলে জাহিদুল ইসলাম ও জাহিদুলের স্ত্রী রহিমা খাতুন শীলপাটা দিয়ে আঘাত করার স্বীকার করেন। এ ঘটনায় ছেলে জাহিদুল ও তার স্ত্রী রহিমাকে আটক করা হয়েছে। আর নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নওগাঁ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। থানায় মামলা দায়ের হয়েছে।