সঠিকভাবে রান্না না করে যেসব খাবার খেলে এই হতে পারে মৃত্যু!

সারাদিন ডেস্কসারাদিন ডেস্ক
প্রকাশিত: ৩:৩৮ অপরাহ্ণ, ২৯/০৪/২০২১

সুস্থভাবে বেঁচে থাকার জন্য খাবারের বিকল্প নেই। তবে এই খাবার যদি আপনি নিয়ম মেনে না খান তবে আপনি বিপাকে পরতে পারেন। আমাদের অনেকের ধারণা শুধু বাইরের খোলা খাবার খেলে পেটের সমস্যা হতে পারে। মনে রাখবেন শুধু বাইরের খোলা খাবার না এমন কিছু খাবার আছে যা খেলে আপনার মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।

আসলে, এই পাঁচ খাবারের মধ্যে প্রাকৃতিকভাবে কিছু বিষাক্ত উপাদান রয়েছে। যা খেলে আমাদের দেহ এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ব্যবস্থা গড়ে তোলে। কিন্তু এগুলো অতিরিক্ত খাওয়া হলেই বিপদ! ঠিক মতো রান্না না করা চিকেন, সঠিকভাবে না ধোয়া লেটুস শাক খেলে শরীরের মধ্যে বিষক্রিয়া তৈরি। আসুন জেনে নেই যেসব খাবার খেলে হতে পারে মৃত্যু-

১. ফুগু (Pufferfish)- জাপানে অত্যন্ত জনপ্রিয় ফুগু বা পাফারফিস বিশ্বের সবচেয়ে বিষাক্ত খাবারগুলির মধ্যে অন্যতম। এই ফুগু মাছ রান্না পদ্ধতি অত্যন্ত জটিল। সঠিকভাবে রান্না না করলে যে কোনও বয়সের মানুষ বিষক্রিয়ায় মারা যেতে পারেন। ফুগুর লিভারে রয়েছে টেট্রোডোটক্সিন। এই বিষ শরীরে গেলে সোডিয়াম পরিমাণ কমিয়ে দেয় ও পেশীগুলিকে অকেজো করে দেয়। যার ফলে শ্বাসকষ্ট হতে শুরু করে। ডেইলি মেইল জানিয়েছে, বিশ্বের অন্যতম বিষাক্ত ফুগু মাছ খেয়ে প্রতি বছরে মৃত্যু হয় ৩০-৫০ জনের। এর ডিম্বাশয়-অন্ত্র-লিভারে টেট্রোডোটক্সিন রয়েছে যা সায়ানডের থেকেও ১২০০ গুণ বিষাক্ত। জাপানে এটি জনপ্রিয় হলেও আমেরিকায় লাইসেন্স ছাড়া এই মাছ বিক্রি করা সম্ভব নয়।

২. আক্কি ফল (Ackee fruit)- জ্যেমাইকার জাতীয় ফল আকিতে রয়েছে হাইপোগ্লাইসিন নামের বিষ। বিশ্বের অন্যতম বিষাক্ত ফল এটি। কারণ, পুরোপুরি পাকার আগে ওই ফল খেলে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। আমেরিকায় কাঁচা আক্কি ফলের উপর ১৯৭৩ সাল থেকে নিষেধাজ্ঞা জারি করা রয়েছে। পাকা আগে এই ফলের মধ্যে থাকে হাইপোগ্লাইসিন নামে একধরণের বিষাক্ত টক্সিন। যা রক্তের গ্লুকোজ উত্‍পাদনকে ব্যহত করে। কাঁচা আক্কি ফল খেলে মানুষ কোমায় চলে যেতে পারে। এমনকি মৃত্যুর সম্ভাবনাও হতে পারে। যদি এই ফল খেতেই হয়, তাহলে পানির মধ্যে গরম করে বরফ-ঠান্ডা পানিতে ভিজিয়ে রেখে খেতে হবে।

৩. সান্নাকজি (Sannakji)- কোরিয়ায় বেবি অক্টোপাস পরিবেশনের কয়েক সেকেন্ড আগে তা জ্যান্ত রাখা হয়। সান্নাকজি নামের ওই ডিসটি সুস্বাদু হলেও প্রাণঘাতী হতে পারে। রোমাঞ্চকর এই খাবার খেতে চাইলে এই সান্নাকজি অর্ডার দিতে পারেন। কোরিয়ায় অত্যন্ত জনপ্রিয় এই খাবার। ডেয়ারডেভিল রেসিপির জন্য সান্নাকজি একবার ট্রাই করতে পারেন। এটি বিষাক্ত না হলেও অনেকেই জানেন না এই বেবি অক্টোপাস জ্যান্ত অবস্থায় কীভাবে খেতে হয়! অক্টোপাসের স্যাকসান প্যাডস মুখের মধ্যে, গলার ভিতরে আটকে থাকতে পারে, যা শ্বাসনালী বন্ধ হয়ে আপনাকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিতে পারে। ফুড ও ওয়াইনের তথ্য অনুযায়ী, প্রতিবছর সান্নাকাজি খেয়ে ৬ জনের মৃত্যু হয়। ভালো করে না চিবালে গলার মধ্যে বেবি অক্টোপাসের সাকসান প্যাডগুলি আটকে যেতে পারে।

৪. হকারল (Hákarl)- হকারল হল গ্রিনল্যান্ডের একধরণের হাঙ্গরের মাংস। বিকট গন্ধ যুক্ত হকারল হল এক ধরণের হাঙরের মাংস। আইসল্যান্ডের বহুল পরিচিত জনপ্রিয় এই মাংস তৈরি করা হয় অদ্ভুত পদ্ধতিতে। প্রথমে মরা হাঙরকে দীর্ঘদিন বালিচাপা দিয়ে রেখে দেওয়া হয়, তারপর তা রোদে শুকোলেই এই মাংস পচে ওঠে। তারপর আইসল্যান্ডবাসীরা স্থানীয় মদ দিয়ে এটিকে ধুয়ে ফেলেন। এই মাংস খেলে প্রথম দিকে কিছু অস্বস্তিকর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া অনুভূতি হয়। এর মধ্য রয়েছে ত্রিমেথিলামাইন অক্সাইড এবং ইউরিক অ্যাসিড, যা খেলে চরম নেশা, অন্ত্রের সমস্যা, স্নায়বিক সমস্যা এবং কখনও কখনও মৃত্যুর কারণ হতে পারে।

Nagad

৫. কাঠবাদাম- এটি খেতে অনেকেই ভালোবাসেন। তবে এতে যে সায়ানড প্রসেসিংয়ের সময় সেই সায়ানড বের না করলে সেই বিটার আমন্ড খেয়ে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।

সূত্র : এই সময়

সারাদিন/২৯ এপ্রিল/এএইচ