বালিয়াকান্দিতে দুই আ.লীগ নেতার বিরোধ, ৫ দফা হামলা-ভাংচুর

রাজবাড়ি প্রতিনিধি:রাজবাড়ি প্রতিনিধি:
প্রকাশিত: ৯:৪৬ অপরাহ্ণ, ২৭/০৪/২০২১

দুই আওয়ামীলীগ নেতার প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে গ্রামবাসীর উপর ৫দফা হামলা, বাড়ী-ঘর ভাংচুর, লুটপাট ও পাল্টাপাল্টি মামলায় অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে গ্রামবাসী। ঘটনাটি ঘটেছে রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার নারুয়া ইউনিয়নের চষাবিলা গ্রামে।

এলাকাবাসী ও ক্ষতিগ্রস্তদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, পূর্ব শত্রুতা ও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বালিয়াকান্দি উপজেলার নারুয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল বারেক বিশ্বাস ও আব্দুল হাই মণ্ডল গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিন হামলা পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটে আসছে। নারুয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি বারেক বিশ্বাস সভাপতি হওয়ার পর থেকে এলাকায় মারামারি জমি দখল সহ বিভিন্ন অপকর্ম বেড়ে চলছে। বারেক বিশ্বাস শিল্পপতি হওয়ার কারণে তিনি বিদেশে বসেই সভাপতি হয়েছেন। এলাকায় না থাকলেও প্রভাব বিস্তারের চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছেন।

স্থানীয় আওয়ামীলীগের অনেকেই জানান, বারেক বিশ্বাসকে আগে তেমন কেউ চিনত না সে ঢাকা থাকতেন, কোন দিন আওয়ামীলীগের কার্যক্রমে ছিলো না। তিনি তার আধিপত্য বিস্তারের জন্য এলাকায় সময় অসময় মারামারি করে। তবে প্রবীণ রাজনৈতিক ব্যক্তিদের মতে বারেক বিশ্বাস তার আধিপত্য বিস্তারের জন্য এই সব কার্যক্রম চালাচ্ছেন। এ পর্যন্ত ৫ দফা হামলা চালিয়ে বাড়ী-ঘর ভাংচুর করেছে।

ক্ষতিগ্রস্ত মজনু মোল্যা অভিযোগ করে বলেন, রবিবার (২৫এপ্রিল) আমার ছেলে তৌকির মোল্যা মোটর সাইকেল নিয়ে মৃগী বাজারে ইফতারি ক্রয় করতে যাচ্ছিল। চষাবিলা গ্রামের আজাদের বাড়ীর সামনে পৌঁছালে মোটর সাইকেলে হর্ন দেওয়াকে কেন্দ্র করে দাউদ বিশ্বাসের সাথে কথা কাটাকাটি হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাতে সিদ্দিকুর রহমান ও মজনু মোল্লার বসত বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর চালায় কামাল ওরফে ডিস কামাল, গফুর বিশ্বাস, দাউদ বিশ্বাস, সাদ্দাম, আজাদসহ ৩০-৪০জন। হামলা চালিয়ে মজনু মোল্লা ও সিদ্দিকুর রহমানের বসত বাড়িতে হামলা চালায়। বাড়ির জানালা দরজা ভেঙে, টিনের বেড়া কুপিয়ে কেটে ঘরে থাকা শোকজ, টেলিভিশন, ফ্রিজ, একটি টিভিএস মোটর সাইকেল, খাট, আলমারীসহ বিভিন্ন আসবাবপত্র ভাংচুর করে। ঘরে থাকা ৪টি মোবাইল ফোন, ১টি ল্যাবটব, ৫ভড়ি ওজনের স্বর্ণালংকার, নগদ ৩লক্ষ টাকাসহ ১০ লক্ষ টাকার মালামাল লুটপাট করে নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে মজনু মোল্যা বাদী হয়ে ১০জনকে আসামী করে সোমবার ( ২৬ এপ্রিল) বালিয়াকান্দি থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। তিনি আরও বলেন, ইতিপূর্বে আরও ৪টি বাড়ীতে ৪টি হামলা চালিয়েছে। সভাপতি হওয়ার পর আমার বাড়ীতে পঞ্চম হামলা।

ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি বারেক বিশ্বাসকে পাওয়া যায়নি। তবে তার চাচা আব্দুল গফুর বিশ্বাস বলেন, ওই বাড়ীর সামনে দিয়ে ইফতার শেষে দোকানের দিকে যাওয়ার সময় পূর্ব বিরোধের জের ধরে সাদ্দাম বিশ্বাস, দাউদ বিশ্বাস ও আজাদ শেখকে কুপিয়ে জখম করে। তাদের কাছে থাকা ৩টি মোবাইল ফোন, ২টি স্বর্ণের চেইন, নগদ ২লক্ষ টাকা ছিনিয়ে নেয়। তাদেরকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এব্যাপারে ইউসুফ বিশ্বাস বাদী হয়ে মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) বালিয়াকান্দি থানায় ৮জনকে আসামী করে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

বালিয়াকান্দি থানার ওসি তারিকুজ্জামান বলেন, অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্ত পূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Nagad