প্রচণ্ড খরায় গাছ থেকে ঝড়ে যাচ্ছে আম, দু:চিন্তায় বাগান মালিকরা

নওগাঁ প্রতিনিধি:নওগাঁ প্রতিনিধি:
প্রকাশিত: ১১:৫৬ অপরাহ্ণ, ২৬/০৪/২০২১

খরায় পুড়ছে বরেন্দ্র অঞ্চল। টানা গত কয়েকদিনের তীব্র তাপদাহে বরেন্দ্র অঞ্চলের আম বাগানগুলোতে পানি শূন্যতায় ব্যাপক হারে ঝড়ে পড়ছে আম। আমের জন্য এই মুহূর্তে দরকার বৃষ্টি। তাহলে আমগুলো রক্ষা পেত। তাই বাগান মালিকরা দু:চিন্তায় রয়েছেন। এভাবে চলতে থাকলে ফলন বিপর্যয়ের আশংকায় তাদের। তবে গত বছরের চেয়ে এবার ফলন বেশি হবার আশা কৃষি বিভাগের। তাই খরায় আমের বাগানে পানি সেচসহ পোকার আক্রমণ ঠেকাতে কীটনাশক ব্যবহারের পরামর্শ দিচ্ছেন তাদের।

জানা গেছে, টানা লম্বা সময় বৃষ্টি নেই। সূর্যের তাপে মনে হচ্ছে গাছের পাতা কুঁকড়ে যাচ্ছে। টানা তাপদাহের কারণে গাছ থেকে ঝড়ে পড়ছে আম। সেই সাথে পোকার আক্রমণ। গত কয়েকদিনের টানা তাপদাহ দুঃচিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে বাগান মালিকদের। তীব্র খরায় আমের বোটা লাল হয়ে পানি শূন্যতায় মাটিতে ঝড়ে পড়ছে গাছের বড় বড় আম। এ দৃশ্য বরেন্দ্র জেলা নওগাঁর পুরো জেলায়।
সাপাহারের আম বাগান মালিক হাবিবসহ বেশ কয়েকজন বলেন, খরা প্রবণ বরেন্দ্র এলাকায় পানি সংকটের কারণে বাগানে সেচ দিতে পারছেন না তারা। তাই যদি দুই একদিনের মধ্যে বৃষ্টি না হয় তাহলে আমের ফলন বিপর্যয়ের শঙ্কা করছেন। আর এভাবে চলতে থাকলে বাগানে গাছ থাকবে কিন্তু আম থাকবে না।

নওগাঁ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শামছুল ওয়াদুদ, খরার কারণে কিছুটা আম ঝড়ে পড়লেও তেমন সমস্যা নাই। কারণ ঝড়ে পড়ার পর যেসব আম থাকবে সেগুলোর মান ভালো থাকবে। প্রতিকুল আবহাওয়ার কারণে উকুন পোকার আক্রমণ দেখা দিয়েছে। আর এ কারণে আমের রস চুষে খাওয়ার ফলে আমে দাগ হয়। তাই তিনি গাছে পানি সেচসহ কীটনাশক ব্যাবহার করার পরামর্শ দেন। আগামী ২৮ থেকে ৩০ এপ্রিল বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। বৃষ্টি হলে সকল সমস্যা সমাধান হবে। আর গতবারের চেয়ে এবার আমের ফলন ভালো হবে বলে আশা কৃষি বিভাগের। চলতি বছর নওগাঁ জেলায় ২৫ হাজার ৮৫০ হেক্টর জমিতে আমের চাষ হয়েছে। যা গতবারের চেয়ে ২৪ হাজার ৭৭৫ হেক্টর জমি বেশী। আর ফলনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে এবার ৩ লাখ ১০ হাজার ২০০ মেট্রিক টন।

সারাদিন/২৬ এপ্রিল