২২ এপ্রিল থেকে মার্কেট খুলে দেয়া ও প্রণোদনার দাবি দোকান মালিকদের

নিজস্ব প্রতিবেদকনিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১১:৩২ অপরাহ্ণ, ১৮/০৪/২০২১

আগামী ২২ এপ্রিল থেকে মার্কেট, দোকান ও ক্ষুদ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুল দেয়ার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি। সেই সঙ্গে ঈদের আগে ঋণ প্রণোদনা হিসাবে সরকারের কাছে ৪৮ হাজার ৩৫৪ কোটি টাকা দাবি করেছেন তারা।

রোববার (১৮ এপ্রিল) রাজধানীর নিউমার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির অফিস কক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়।

আগামী ২২ এপ্রিলের মধ্যে মার্কেট ও দোকানপাট খুলে দেওয়ার দাবিতে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি ও ঢাকা মহানগর (উত্তর ও দক্ষিণ) দোকান মালিক সমিতির উদ্যোগে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য হেলালউদ্দিন বলেন, গত এক বছর প্রাণঘাতী মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে ব্যবসায়ীরা অর্থনৈতিকভাবে চরম ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

২০২০ সালের ১৮ মার্চ যখন বাংলাদেশে প্রথম করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে তখন আমরা দোকান মালিকরা স্বেচ্ছায় ২৫ মার্চ থেকে সবকিছু বন্ধ করে দেই। সরকার পরদিন ২৬ মার্চ থেকে সবকিছু বন্ধ ঘোষণা করে।

তখন থেকে এদেশের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জীবনে ব্যবসায়িক মন্দা ও আর্থিক অনিশ্চয়তা নেমে আসে। গত বছরের ৫ মে’র পর আমাদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সীমিত পরিসরে দোকানপাট ও মার্কেট খুলে দেওয়ার পর ব্যবসা-বাণিজ্যে কিছুটা গতি আসে।

Nagad

এরপর আবার সংক্রমণ বাড়তে থাকায় গত ৭ থেকে ১৩ এপ্রিল বিধিনিষেধ এবং ১৪ থেকে ২১ এপ্রিল কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে সরকার। এ অবস্থায় ব্যবসায়ীদের পরিস্থিতি বিবেচনা করে মার্কেট খুলে দেওয়ার দাবি জানান তারা।

বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির দাবিগুলো হলো:
আগামী ২২ এপ্রিল থেকে প্রয়োজনীয় সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনে শপিংমল, মার্কেট, দোকান ও ক্ষুদ্র ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলে দিতে নির্দেশনা দেওয়া, শ্রমিক-কর্মচারীদের দুই মাসের বেতন ও বোনাসের ৯৬ হাজার ৭০৮ কোটি টাকার অর্ধেক ৪৮ হাজার ৩৫৪ কোটি টাকা ঈদের আগে ঋণ প্রণোদনা হিসেবে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের দেওয়া এবং দেশের সার্বিক অর্থনৈতিক অচলাবস্থা দূর করার লক্ষ্যে আগামী তিন মাসের মধ্যে দেশকে ভ্যাকসিনেশনের আওতায় আনাতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির মহাসচিব মো. জহিরুল হক ভূঁইয়াসহ ঢাকা মহানগর (উত্তর ও দক্ষিণ) দোকান মালিক সমিতির ব্যবসায়িক নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

জানা গেছে, আগামী ১৯ এপ্রিল সোমবার এ সংক্রান্ত একটি শীর্ষ পর্যায়ের সভা অনুষ্ঠিত হবে। সেই সভার মতামত নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন সাপেক্ষে চলমান লকডাউন আরও এক সপ্তাহ বাড়িয়ে ২২ এপ্রিল থেকে আগামী ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত চলতে পারে। এর মধ্যেই ব্যবসায়ীরা মার্কেট, দোকান ও ক্ষুদ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুল দেয়ার দাবি জানালেন।

সারাদিন/১৮এপ্রিল/এএইচ