কঠোর লকডাউনের আগে ব্যাংকে টাকা তোলার হিড়িক

সারাদিন ডেস্কসারাদিন ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২:৫৩ অপরাহ্ণ, ১৩/০৪/২০২১

মহামারী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে সরকার সাত দিনের কঠোর লকডাউন ঘোষণা করেছে। এ সময় ব্যাংকিং ব্যবস্থা বন্ধ থাকবে। এ ঘোষণায় রাজধানীর ব্যাংকগুলোতে গ্রাহকদের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। চলছে টাকা তোলার হি‌ড়িক। এ অবস্থায় গ্রাহ‌কদের সেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছেন ব্যাংক কর্মীরা।

মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) রাজধানীর বিভিন্ন ব্যাংকের শাখা ঘুরে এমন অবস্থা দেখা গেছে।

এরআগে সোমবার (১২ এপ্রিল) ১৪ এপ্রিল থেকে এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউন ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন জারি করে সরকার। এ সময় শুধু শিল্প কারখানা খোলা থাকবে।

একাধিক ব্যাংকের বিভিন্ন শাখায় গিয়ে দেখা যায়, এদিন ব্যাংক খোলার পরপরই শাখাগুলোতে ভিড় জমান গ্রাহকরা। বেশিরভাগ শাখায় গ্রাহকের দীর্ঘ সারি দেখা গেছে। অন্যদিকে গ্রাহকের চাপ সামলাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে ব্যাংক কর্মীদের। অনেক শাখাতেই অতিরিক্ত ভিড়ে উপেক্ষিত হচ্ছে শারীরিক দূরত্ব। তবে ব্যাংকের শাখায় প্রবেশের সময় থার্মাল থার্মোমিটার দিয়ে গ্রাহকের তাপমাত্রা পরিমাপ করা হচ্ছে।

একই অবস্থা দেখা গেছে এটিএম বুথগুলোতেও। সেখানেও স্বাভাবিক সময়ে তুলনায় বেশি গ্রাহকের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে। তবে শাখার চেয়ে তুলনামূলক এটিএম বুথগুলোতেই বেশি স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে। একসঙ্গে একাধিক গ্রাহককে প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না বুথ বা ফাস্ট ট্র্যাকে। ঢোকার সময় হাত-পায়ে দেয়া হচ্ছে জীবানুণাশক।

ব্যাংক কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, লকডাউনের কারণে ব্যাংকে গ্রাহকের উপস্থিতির সঙ্গে বেড়েছে লেনদেনও। যা অন্যদিনের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ। এদিন টাকা উত্তোলনের পরিমাণই বেশি ছিল।

Nagad

মেহেদি হাসান নামে সোনালী ব্যাংকের এক গ্রাহক জানান, ‘লকডাউনে ব্যাংক খোলা না রাখায় এক ধরনের ভোগান্তি তৈরি হচ্ছে। সবাই ব্যাংকমুখী হচ্ছেন, সবারই টাকার প্রয়োজন। কে কখন অসুস্থ হচ্ছেন তাই নগদ টাকা সবাই কাছে রাখতে চান।’

ইসলামী ব্যাংক কর্মকর্তা আফজাল হোসেন বলেন, লকডাউনে ব্যাংক লেনদেন বন্ধ থাকবে তাই গ্রাহকরা আজ ব্যাংকে ভিড় করছেন। কী পরিমাণ লেনদেন হচ্ছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আজ শুধু টাকা উত্তোলনই হচ্ছে। গত কয়েকমাসে এতো উত্তোলন দেখিনি যেটা সকালের শুরুতেই হচ্ছে। আমরা বিকেল ৩টা পর্যন্ত সেবা দেব। হয়ত পুরো সময়টাই গ্রাহকের ভিড় থাকবে।

সারাদিন/১৩এপ্রিল/এএইচ