সোশ্যাল মিডিয়া কমার্সে তরুণ উদ্যোক্তাদের অংশগ্রহণ বাড়ছে: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

‘‘রুরাল টু গ্লোবাল ই-কমার্স পলিসি কনফারেন্স ২০২১’’ এর প্রথম সেশনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, এফ-কমার্স এর ক্ষেত্রে বাংলাদেশর অংশগ্রহণ ক্রমেই উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। অন্তত ৪ লক্ষ নতুন উদ্যোক্তা এফ-কমার্সের সাথে যুক্ত আছেন, তাদের জন্য এবং স্টার্ট আপ বিজনেস এর সাথে যুক্ত ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের কথা মাথায় রেখে বাংলাদেশ ব্যাংক ৪% সুদে সল্প ঋণ দেয়ার ব্যবস্থা করতে যাচ্ছে।

রবিবার ( ১১ এপ্রিল) ভার্চুয়াল আয়োজনে এই পলিসি কনফারেন্সে প্রতিমন্ত্রী এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, অনলাইন ইনফ্রাস্ট্রাকচারে রেগুলেশনের সাথে ডিরেগুলেশনের ব্যাপারটিও গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করতে হবে যাতে করে নতুন উদ্ভাবনের সুযোগ তৈরি হতে পারে। গ্লোবাল ই-কমার্সের প্ল্যাটফর্মে ১৬ টি ডমিনো ইফেক্ট ইস্যুকে লক্ষ্য রেখে সমাধান খুঁজে বের করতে হবে। এভাবেই বাংলাদেশ গ্লোবালি তার অবস্থান শক্ত করতে সমর্থ হবে। তিনি করোনাকালীন ই-ক্যাবের কর্মসূচীর প্রশংসা করেন এবং সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগ তুলে ধরেন।

রবিবার (১১ এপ্রিল) ভার্চুয়াল আয়োজনে উক্ত পলিসি কনফারেন্স আয়োজন করেছে ই-কমার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ। সকাল ১১ টায় পলিসি কনফারেন্সের প্রথম সেশন উদ্বোধন করেন স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন মন্ত্রী তাজুল ইসলাম এমপি। কী নোট উপস্থাপন করেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব হাফিজুর রহমান।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড জাফর উদ্দীন বলেন, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ডিজিটাল কমার্স পলিসি বাস্তবায়নের কাজ করছে এজন্য ডিজিটাল কমার্স সেলও গঠন করা হয়েছে। ডিজিটাল কমার্স পরিচালনা নির্দেশনা ২০২১’’ চূড়ান্তকরণের কাজ চলছে। আমরা সোশ্যাল মিডিয়া কমার্স উদ্যোক্তাদের অন্তর্ভুক্তি করার বিষয়টা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বিবেচনাধীন রয়েছে। তিনি বিগত বছর করোনার শুরু থেকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন উদ্যোগ তুলে ধরেন।

বিএফটিআই এর প্রধান নির্বাহী ওবায়দুল আযম বলেন, সোশ্যাল মিডিয়া ভিত্তিক উদ্যোক্তাদের ট্রেড লাইসেন্স এর বিকল্প হিসেবে একটি রেজিস্ট্রেশন প্রসেসে নিয়ে আসলে ক্রেতার আস্থা বাড়বে এবং এই বিশাল উদ্যোক্তা গোষ্ঠীকে সহযোগিতার করার রাস্তা বের করা যাবে। বেকারত্ব দূরীকরণে ই-কমার্সের পাশাপাশি এফ-কমার্স বড় ভূমিকা পালন করছে বলে তিনি মত প্রকাশ করেন।

Nagad

বাংলাদেশ ব্যাংক এর ডেপুটি গভর্নর ফারাহ মোঃ নাসের বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের স্ক্রো সুবিধা বাস্তবায়িত হলে অনলাইন পেমেন্ট এর ক্ষেত্রে ক্রেতাদের নিরাপত্তা বাঁধ তৈরি হবে। এবং ক্রসবর্ডার ই-কমার্সের পেমেন্ট সংক্রান্ত যে জটিলতা রয়েছে তাও একটি সুষ্ঠু প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সমাধান হবে বলে তিনি জানান।

মাস্টারকার্ডের কান্ট্রি ম্যানেজার সাইয়েদ মোহাম্মদ কামাল, অনলাইন লেনদেন ক্ষেত্রে বিগত বছরে যে প্রবৃদ্ধি এসেছে তা ধরে রাখা দরকার। কার্ড ব্যবহারকারীদের জন্য আর্থিক লেনদেনের ক্ষেত্রে কিছু সুবিধা নিশ্চিত করলে এই পরিস্থিতি আরও উন্নতি হবে।

বেসিসের সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবির বলেন, ই-কমার্সের ব্যপ্তি যেভাবে বাড়ছে এখনি একটি সুষ্ঠু নিয়মের মাধ্যমে আনা উচিত। এবং এখানে ‘‘ব্যাড আপেল’’ থাকলে তা সরিয়ে ভোক্তার আস্থা অর্জনকে গুরুত্ব দিয়ে কর্ম পরিকল্পনা সাজাতে হবে।

ই-ক্যাবের সভাপতি শমী কায়সারের সভাপতিত্বে অন্যান্য অতিথির মধ্যে আলোচনায় এটুআই এর পলিসি এডভাইজার আনীর চৌধুরী, বিল্ড এর সিইও ফেরদৌস আরা বেগম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এসোসিয়েট প্রফেসর বিএম মাইনুল হাসান এবং ধামাকা শপ এর এমডি জসিমুদ্দীন চিশতিসহ আরও অনেকে। পলিসি কনফারেন্স দ্বিতীয় সেশন ১১ এপ্রিল বিকেল ৩টায়। বিকেলের সেশনে প্রধান অতিথি রয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।