রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের উদারতার প্রশংসায় জন কেরি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক:জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক:
প্রকাশিত: ১:০২ পূর্বাহ্ণ, ১০/০৪/২০২১

রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে এবং মিয়ানমারের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে সংশ্লিষ্ট সকলকে সহায়তা করতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র অত্যন্ত দৃঢ় প্রতিজ্ঞ বলে জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের জলবায়ু বিষয়ক বিশেষ দূত জন কেরি।

তিনি অসামান্য উদারতা প্রদর্শনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করেছেন। একই সাথে, তিনি মনে করেন, বাংলাদেশের জন্য এটি অত্যন্ত ব্যয়বহুল।

শুক্রবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের সাথে বৈঠকের পর রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় যৌথ সংবাদ সম্মেলনে কেরি এই মন্তব্য করেন।

এ সময় পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী শাহাব উদ্দিন, সাবের হোসেন চৌধুরী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম শাহরিয়ার আলম, ভালনারেবল ফোরামের রাষ্ট্রপতির বিশেষ দূত আবুল কালাম আজাদ, পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন ও বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল মিলার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

কেরি জানান, মিয়ানমারের জনগণ যা প্রত্যক্ষ করছে তা এখন বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ চ্যালেঞ্জ। বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের যে অবিশ্বাস্য চেতনা ও সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে তার জন্য বাইডেন প্রশাসন অত্যন্ত কৃতজ্ঞ।

তিনি বলেন, বিশ্ব সম্প্রদায়ের সহায়তায় পদক্ষেপ নেয়া জরুরি, কারণ এটি একমাত্র বাংলাদেশের দায়িত্ব নয়।

Nagad

বাইডেন প্রশাসন মিয়ানমারের জবাবদিহি নিশ্চিত করার জন্য অনেক চেষ্টা করে কোনো ফল পাননি।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমি জানি যে আমরা খুব কঠোর লড়াই করেছি এবং মিয়ানমারকে অন্য পথে নেয়ার চেষ্টা করেছি। আমাদের উচ্চ প্রত্যাশা ছিল। আমি ব্যক্তিগতভাবে নাইপিডো গিয়েছিলাম এবং জেনারেলদের সাথে দেখা করেছি।’

কেরি বলেন, ‘বাংলাদেশ অন্যতম সহায়তার হাত এবং রোহিঙ্গাদের একটি দ্বীপ দিয়েছে যাতে রোহিঙ্গারা ভবিষ্যত গোছাতে সক্ষম হয়। তবে এটি দীর্ঘ মেয়াদী নয়। এতে সমস্যার সমাধান হয় না।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেন বলেন, ‘রোহিঙ্গারা বন ও ভূতাত্ত্বিক ব্যবস্থা ধ্বংস করছে। আমরা আশাবাদী যে যুক্তরাষ্ট্রের কার্যকর উদ্যোগ রোহিঙ্গাদের একটি সাধারণ জীবন-যাপনের জন্য মিয়ানমারে নিরাপদে ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবর্তনের জন্য সহায়তা করতে পারে।’

বর্তমানে কক্সবাজার ও ভাসানচরে ১১ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়েছে বাংলাদেশ। এর আগে, বাংলাদেশ ও মিয়ানমার ২০১৭ সালের ২৩ নভেম্বর প্রত্যাবাসন চুক্তিতে স্বাক্ষর করে।

২০১৮ সালে ১৬ জানুয়ারি বাংলাদেশ ও মিয়ানমার ফিজিক্যাল অ্যারেঞ্জমেন্ট সম্পর্কিত একটি নথিতে স্বাক্ষর করে যা রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের পক্ষে সহজ হবে বলে আশা করা হয়েছিল।

বাংলাদেশ জানায়, রোহিঙ্গারা তাদের সরকারের ওপর আস্থা রাখে না এবং তাদের মধ্যে আস্থা বাড়াতে বাংলাদেশ বেশ কয়েকটি প্রস্তাব দেয়।

রোহিঙ্গা সঙ্কটের স্থায়ী সমাধানের জন্য-বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিক, বহুপাক্ষিক, ত্রিপাক্ষিক এবং বিচার ব্যবস্থা- একাধিক উপায়ে চেষ্টা করছে।

বাংলাদেশ মিয়ানমারের বন্ধুত্বপূর্ণ দেশ জাপান, চীন, রাশিয়া, ভারত ও আসিয়ানভুক্ত দেশদগুলো থেকে বেসামরিক নাগরিক পর্যবেক্ষক মোতায়েনের প্রস্তাব করেছিল।

উল্লেখ্য, বিশ্বব্যাপী জলবায়ু সঙ্কট মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রতিশ্রুতি জানাতে শুক্রবার সকাল ১১টায় ঢাকায় পৌঁছান জন কেরি।

হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন ও ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার তাকে স্বাগত জানান।

২২ এপ্রিল শুরু হতে যাওয়া বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আমন্ত্রণ জানাতে তিনি চার দিনের ভারত সফর শেষে ঢাকায় এসেছেন। ৪০টি দেশের রাষ্ট্র বা সরকারপ্রধানের অংশগ্রহণে ভার্চুয়ালি এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনে জলবায়ু প্রভাব বিশেষত দুর্বল জলবায়ু পরিস্থিতে বাংলাদেশের নেতৃত্বের জন্য স্বীকৃতি পাবেন।

ঢাকায় কেরি বাংলাদেশ সরকারের প্রতিনিধি এবং মূল উন্নয়ন ও আন্তর্জাতিক অংশীদারদের সাথে সাক্ষাৎ করেন।

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় বাংলাদেশ অগ্রণী ভূমিকা পালন করে বলে জানায় ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরাম ও ভালনারেবল টুয়েন্টি গ্রুপ অব ফাইন্যান্স মিনিস্টারস-এর সভাপতি হিসেবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ ৪০ জন বিশ্বনেতাকে বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনে যোগ দেয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানান। জো বাইডেন কর্তৃক আয়োজিত এই ভার্চুয়াল শীর্ষ সম্মেলন জনগণের জন্য লাইভ স্ট্রিম করা হবে।

বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলন জোরালো জলবায়ু কর্মকাণ্ডের প্রয়োজনীয়তা এবং অর্থনৈতিক সুবিধাগুলো তুলে ধরবে। গ্লাসগোতে এই নভেম্বরে জাতিসঙ্ঘের জলবায়ু পরিবর্তন সম্মেলনের (সিওপি ২৬) পথে একটি মূল মাইলফলক হয়ে থাকবে।

প্রেসিডেন্ট বাইডেন জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জকে জোর দিয়ে বলেছেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র এবং বিশ্ব গভীর জলবায়ু সঙ্কটের মুখোমুখি এবং আমাদের বৈদেশিকনীতি, কূটনীতি এবং জাতীয় নিরাপত্তার কেন্দ্রবিন্দুতে জলবায়ু পরিবর্তন থাকা উচিৎ।

প্যারিস চুক্তিতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ফিরিয়ে নিতে বাইডেন তার অফিসের প্রথম দিনই পদক্ষেপ নিয়েছিলেন।

পরে ২৭ জানুয়ারি তিনি ঘোষণা দেন, জলবায়ু সঙ্কট মোকাবিলায় প্রধান অর্থনীতির প্রচেষ্টা ঝালাইয়ে তিনি শিগগিরই নেতাদের একটি শীর্ষ সম্মেলনের আয়োজন করবেন। সূত্র : ইউএনবি