ব্রেকআপের কথা ভাবছেন, সিদ্ধান্ত নিতে দ্বিধা?

সারাদিন ডেস্কসারাদিন ডেস্ক
প্রকাশিত: ২:৩৮ অপরাহ্ণ, ০৭/০৪/২০২১

ছবি: গ্রেট বিগেনিং পেজ থেকে নেওয়া

বেশ কিছুদিন ধরেই সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসার কথা ভাবছে মেঘনা। কিন্তু ১২ বছরের সম্পর্ক হঠাৎ শেষ হয়ে যাবে! এটাও যেন সে ঠিক মেনে নিতে পারছে না। কিন্তু দীপ্তকের সঙ্গে দীর্ঘ এই টানাপোড়েনে সে ক্লান্ত। প্রতিদিন রাত হলেই অশান্তি, ঝামেলা। আর তারপর দীপ্তকের মায়ের ফোন, সেই এক কথা আর নিতে পারছে না মেঘনা। স্কুল জীবন থেকেই ওদের প্রেমপর্ব শুরু। এখন দুই বাড়ির পক্ষ থেকেই চাইছে চারহাত এক করে দিতে। দীপ্তকের মায়ের ধারণা বিয়ে হলেই সব ঠিক হয়ে যাবে। কিন্তু বেশ কয়েক বছর ধরে মেঘনা বুঝতে পারছিল ছোটবেলার সেই মোহটা আর নেই। কারণ মানসিকতার দিক থেকে তারা দুই মেরুর বাসিন্দা। যেহেতু তাদের সম্পর্কের কথা সকলেই জানে তাই নিতান্ত লোকলজ্জার ভয়েই একরকম অভিনয় করে চলেছে সে। মেঘনার বন্ধুরাও যে দীপ্তককে খুব পছন্দ করে তাও নয়। বরাবরই মেঘনা একটু অন্যরকম। প্রথাগত চাকরির বাইরে গিয়ে নিজের মতো কাজ করতে চাইত। আর এতে প্রবল আপত্তি দীপ্তকের। মেঘনা বুঝে গিয়েছে দীপ্তকের সঙ্গে বিয়ে হয়ে গেলে তার জীবনের এখানেই ইতি। তাই মনপ্রাণ চেষ্টা করছে আবেগকে নিয়ন্ত্রণে রেখে সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসার। মানসিক ভাবে তীব্র দ্বন্দ্বে ভুগছে।

এরপরই এক বিশেষজ্ঞের কাছে পরামর্শ চায় সে। তিনি মেঘনাকে যেমন উপদেশ দিলেন-

সম্পর্ক আর রাখতে চাই না, মন থেকে মানতে হবে
আগে নিজেকে প্রশ্ন করুন এই সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে এসে আদৌ আপনি খুশি থাকতে পারবেন কিনা। একটা পুরনো অভ্যেস পুরোপুরি ছাড়তে হবে। মানিয়ে নিতে পারবেন তো? মনের দিক থেকে সম্পূর্ণ সায় পেলে তবেই এগোন। জীবনটা আপনার। কাজেই আপনি যেভাবে চাইবেন, সেই ভাবেই চলবে।
অন্যদেরও সমর্থন প্রয়োজন
প্রথমেই বিষয়টি নিয়ে সঙ্গীর সঙ্গে আলোচনা করুন। এই সিদ্ধান্তে তিনি রাজি তো? কারণ ব্রেকআপের আগে দু পক্ষ থেকেই স্পষ্ট থাকা দরকার। বাড়ির লোককে বোঝান কোন কোন দিক থেকে সমস্যা হচ্ছে। কেন মানিয়ে নিতে পারছেন না। সারাজীবন অশান্তি ভোগ করার থেকে আগেই সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসা ভালো এটাও তাদের বুঝতে হবে। আপনি ঠিকভাবে বোঝাতে পারলে তারা নিশ্চয় বুঝবেন।

নিজেকে প্রস্তুত করুন

মানসিক ভাবে নিজেকে প্রস্তুত করুন। কারণ ব্রেকআপের কথা সবাই জানলে সেই বিষয়ে আপনাকে প্রশ্ন করবেনই। কারণ আমাদের সমাজে এখনও সকলের মধ্যে সেই বোধ তৈরি হয়নি যে কিছু বিষয় একেবারেই ব্যক্তিগত। এছাড়াও ব্রেকআপের পর একটা মেয়ের দিকেই কিন্তু আঙুল ওঠে। আর তাই মনকে শক্ত করুন। যে কোনও পরিস্থিতির মোকাবিলা আপনাকেই করতে হবে। সব প্রশ্নের উত্তরও আপনাকেই দিতে হবে।

নিজের মধ্যে আত্মবিশ্বাস রাখুন

Nagad

নিজে একা ভালো থাকবেন, ঘুরে দাঁড়ানোর এই লড়াইতে আপনাকে জিততেই হবে। এই আত্মবিশ্বাসটুকু নিজের মনে রাখুন। সিদ্ধান্ত যখন নিয়েই ফেলেছেন তখন মনের মধ্যে কোনও আক্ষেপ রাখবেন না। নিজের দুর্বলতা অন্যদের সামনে প্রকাশ করবেন না। যদি মনে হয় নির্দিষ্ট কোনও বন্ধুগোষ্ঠীর সঙ্গে থাকতে সমস্যা হচ্ছে তাহলে সেখান থেকে বেরিয়ে আসুন।

লম্বা শ্বাস নিন

এই টানাপোড়েনে নিজকে ভালো রাখা খুব জরুরি। তাই প্রতিদিনের ব্যস্ততার মধ্যে নিজের জন্যেও আলাদা করে সময় বের করুন। প্রাণায়ম করুন। নিজের মতো শরীরচর্চা করুন। পছন্দের কাজ করুন। কাছের বন্ধুদের সঙ্গে কথা বলুন। নিজের মতো থাকার চেষ্টা করুন। নিজের ভবিষ্যতের দিকে লক্ষ্য রাখুন। দেখবেন সিদ্ধান্ত নেওয়াও সহজ হবে আর নিজে ভালো থাকবেন।
সূত্র : এই সময়

সারাদিন/৭এপ্রিল/এএইচ