যৌন নিপীড়নের অভিযোগে ‘মামলার মুখোমুখি’ ব্রিটিশ প্রিন্স অ্যান্ড্রু

সারাদিন ডেস্কসারাদিন ডেস্ক
প্রকাশিত: ৬:০৩ অপরাহ্ণ, ১৩/০১/২০২২

সংগৃহীত

যৌন নিপীড়নের অভিযোগে ব্রিটিশ প্রিন্স অ্যান্ড্রুর বিরুদ্ধে ভার্জিনিয়া জুফ্রের করা মামলা খারিজের আবেদন প্রত্যাখ্যান করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের একজন বিচারক। ৩৮ বছর বয়সী জুফ্রের অভিযোগ, কিশোরী থাকাকালে তিনি ডিউক অব ইয়র্কের যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছিলেন।

বুধবার (১২ জানুয়ারি) দেওয়া রায়ে মার্কিন ডিস্ট্রিক্ট আদালতের বিচারক লুইস কাপলান বলেন, প্রয়াত ধনকুবের জেফরি এপস্টিন যৌনদাসী হিসেবে পাচার করার সময় অ্যান্ড্রু তাকে আঘাত করেছিলেন এবং ইচ্ছাকৃতভাবে মানসিক কষ্ট দিয়েছিলেন- এই অভিযোগ নিয়ে জুফ্রে মামলা চালাতে পারবেন।

অভিযোগগুলো নিয়ে ‘সন্দেহ পোষণের’ ক্ষেত্রে অ্যান্ড্রুর প্রচেষ্টার মূল্যায়ন করার সময় এখনও হয়নি, তবে ৬১ বছর বয়সী প্রিন্স বিচার চলাকালেও তার প্রচেষ্টা জারি রাখতে পারবেন, ম্যানহাটনের ওই বিচারক এমনটা বলেছেন।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এইসব তথ্য জানানো হয়েছে।

বিচারক কাপলান আরও বলেন, ২০০৯ সালে এপস্টিন যেভাবে জুফ্রের সাথে মীমংসায় পৌঁছেছিলেন তা অ্যান্ড্রুকে ‘পরিষ্কার ও দ্ব্যর্থহীনভাবে’ এই ধরনের মামলা থেকে সুরক্ষা দেয় কিনা সে বিষয়ে এত তাড়াতাড়ি সিদ্ধান্ত দেওয়া যাবে না।

রয়টার্স জানিয়েছে, মার্কিন বিচারকের রায় প্রসঙ্গে অ্যান্ড্রুর আইনজীবীদের সাথে যোগাযোগ করা হলেও তাৎক্ষণিকভাবে তাদের সাড়া পাওয়া যায়নি।

Nagad

জুফ্রের আইনজীবী ডেভিড বোয়িস এই রায়ে তার মক্কেল সন্তুষ্ট বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন।

জুফ্রের অভিযোগ, দুই দশকেরও বেশি সময় আগে এপস্টিনের সহযোগী গিলেইন ম্যাক্সওয়েলের লন্ডনের বাড়িতে অ্যান্ড্রু তাকে যৌনকর্মে লিপ্ত হতে বাধ্য করেছিলেন। এপস্টিনের মালিকানাধীন দুটি জায়গায় ব্রিটিশ প্রিন্স তার ওপর নিপীড়ন চালিয়েছিলেন।

রানি এলিজাবেথের দ্বিতীয় ছেলে ডিউক অব ইয়র্ক শুরু থেকেই এসব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন।

২০০১ সালে যখন তিনি যৌন নির্যাতন করেছিলেন বলে অভিযোগ, সে সময় ওই নারীর বয়স ছিল ১৭ বছর।

সারাদিন/১৩ জানুয়ারি/এমবি