মোংলাকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীতের সিদ্ধান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদকনিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৪:০৪ অপরাহ্ণ, ২৭/০১/২০২০

মোংলা বন্দরের চ্যানেলের গভীরতা কম থাকায় পণ্যবাহী বড় কোন জাহাজ ঢুকতে পারছেনা। এতে করে ছোট লাইটার জাহাজ দিয়ে করতে হচ্ছে পণ্য খালাস। যার ফলে একদিকে যেমন পণ্য খালাসে ব্যয় বাড়ছে, অন্যদিকে লাগছে বেশি সময়।

এই সমস্যা থেকে উত্তরণ করে মোংলাকে আন্তর্জাতিক বন্দরে উন্নীত করতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করছে কতৃপক্ষ। এ উদ্যোগ বাস্তবায়নে ‘মোংলা বন্দর চ্যানেলের ইনার বারে ড্রেজিং’ প্রকল্প হাতে নিয়েছে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়।

চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য মঙ্গলবার (২৮ জানুয়ারি) রাজধানীর শেরে বাংলানগর এনইসি সম্মেলন কক্ষে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) সভায় প্রকল্পটি উপস্থাপন করা হবে।

এ প্রকল্পের প্রস্তাবিত ব্যয় ধরা হয়েছে ৭৯৩ কোটি ৭২ লাখ ৮০ হাজার টাকা। প্রকল্পটি বাস্তবায়নের সময়সীমা ধরা হয়েছে জানুয়ারি ২০২০ থেকে জুন ২০২২ সাল নাগাদ।

নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, প্রকল্পের আওতায় কাটার সাকশান ড্রেজারের মাধ্যমে ১৫৮ লাখ ঘনমিটার এবং ট্রেইলিং সাকশান হপার ড্রেজারের মাধ্যমে ৫৮ লাখ ঘনমিটার ড্রেইজিং করা হবে। ২ লাখ ঘনমিটার ডাইক ও ৫০ হাজার ঘনমিটার জিয়োটিউব ডাইক নির্মাণ করা হবে।

জানা গেছে, বাংলাদেশে যেসব কন্টেইনারবাহী জাহাজ আসা যাওয়া করে, সেগুলো পূর্ণ লোড অবস্থায় প্রায় ৯.৫ মিটার ড্রাফটের হয়ে থাকে। মোংলা বন্দরের আউটার বার ও ইনার বারের নাব্যতা সব সময় সাত থেকে সাড়ে সাতের মধ্যেই থাকে। এ সংকটের কারণে কন্টেইনারবাহী ৯.৫ মিটার ড্রাফটের জাহাজ মোংলা বন্দরে সরাসরি প্রবেশ করতে পারে না। এই জন্যই ড্রেজিং করা হবে। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে আন্তর্জাতিক মানের হবে মোংলা বন্দর।

বন্দর সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে এ বন্দরে বাণিজ্যিক জাহাজ আসে ৬২৩টি, আর কার্গো হ্যান্ডেলিং হয় ৭৫ লাখ ১৩ হাজার ৭২৭ টন। বন্দরটিতে ২০১৬-১৭ অর্থবছরে যেখানে ২৬ হাজার ৯৫২টি কন্টেইনারে পণ্য আমদানি করা হয়, সেখানে ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরের প্রথম তিন মাসেই পণ্য আমদানি হওয়া কন্টেইনারের সংখ্যা প্রায় ৮ হাজার। অর্থাৎ বছর বছর বেড়েই চলেছে জাহাজ খালাস আর পণ্য আমদানির কন্টেইনারের সংখ্যা।

এসব চাহিদার কথা চিন্তা করেই সুন্দরবন ঘেঁষে বাগেরহাটের মোংলা বন্দরের জন্য প্রথমবারের মতো কেনা হচ্ছে মোবাইল হারবার ক্রেন।

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের প্রধান (পরিকল্পনা) মো. জহিরুল হক বলেন, মোংলা বন্দরে বর্তমানে ৭ থেকে সাড়ে ৭ মিটার ড্রাফটের জাহাজ ভিড়তে পারে। প্রকল্পের মাধ্যমে এটাকে ১০ থেকে সাড়ে ১০ মিটারে রূপ দেওয়া হবে। পদ্মাসেতু বাস্তবায়িত হলে ঢাকার নিকটবর্তী বন্দর হবে মোংলা। পদ্মাসেতু বাস্তবায়নের ফলে ১০ থেকে ১৫ শতাংশ পরিবহন সক্ষমতা বৃদ্ধি পেলে বছরে তিন হাজার জাহাজ হ্যান্ডেলিং করতে হবে এখানে। এই জন্য আন্তর্জাতিক মানের রূপ দেয়া হচ্ছে বন্দরকে।

সারাদিন/২৭জানুয়ারি/এএইচ/টিআর