গোপীবাগে ইশরাক-তাপস সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ

বিশেষ প্রতিবেদকবিশেষ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৫:১৮ অপরাহ্ণ, ২৬/০১/২০২০

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত মেয়রপ্রার্থী ইশরাকের প্রচারণা চলাকালে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়রপ্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। রোববার (২৬ জানুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর গোপীবাগ এলাকায় অবস্থিত আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থীর স্থানীয় নির্বাচনী ক্যাম্পের পাশে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, মতিঝিলে প্রচারণা শেষে করে বাসায় ফিরছিলেন বিএনপি প্রার্থী ইশরাক। টিকাটুলির মোড় হয়ে সেন্ট্রাল ইউমেন্স কলেজের সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় ৩৯ নং ওয়ার্ড মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থীর কর্মী সমর্থকদের সাথে বাক্য বিনিময় হয় ইশরাকের সমর্থকদের। এর এক পর্যায়ে এ হামলার ঘটনা ঘটে। বেশ কয়েকটি গুলির শব্দ শোনা যায়। প্রায় আধাঘন্টা ধরে চলে দু’গ্রুপের মধ্য ইট-পাটকেল নিক্ষেপ ও রড- লাঠিসোঁটা নিয়ে সংঘর্ষ।

এ সময় পুরো এলাকায় সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে আনে। সংঘর্ষে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। আহতদের মধ্যে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল সময় টেলিভিশনের একজন ক্যামেরাপারসনও রয়েছেন।

‌ইশরাক বলেন, প্রচারণার একপর্যায়ে গোপীবাগে আমার বাসার কাছে পৌঁছালে আওয়ামী লীগ সমর্থকরা আমাদের ওপর হামলা চালায়। তারা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এতে আমাদের অনেকের মাথা ফেটে গেছে। বাধা দিতে গেলে তারা আমাকেও মারতে উদ্যত হন।

তিনি বলেন, এছাড়া তাদের একজনের কাছে আগ্নেয়াস্ত্র দেখতে পাই। আমাদের একজন কর্মীকে আটকে রাখা হয় বলেও খবর পেয়েছি। আপনারা শাস্ত থাকুন। আগামী ১ ফেব্রুয়ারি তারিখের ভোটের মাধ্যমে এর জবাব দেওয়া হবে।

পুলিশের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, ইশরাক এ এলাকায় প্রচারণা চালাবেন তা আগে থেকে জানানো হয়নি। আমাদের কাছে যে চিঠি দেওয়া হয়েছিল তাতে বলা হয় তিনি বিকেলে গোপীবাগে প্রচারণা চালাবেন। কিন্তু তার আগে কেন প্রচারণা চালাতে গেলেন তা বোধগম্য নয়। যাই হোক, পুলিশ সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে এনেছে। পরিস্থিতি এখন শান্ত।

ওয়ারি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এখন পরিস্থিতি শান্ত আছে।

সারাদিন/২৬জানুয়ারি/টিআর