‘আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দায়িত্ব বিচ্যুতি হলেই কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা’

জেষ্ঠ্য প্রতিবেদকজেষ্ঠ্য প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৬:৪৬ অপরাহ্ণ, ২২/০১/২০২০

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা বলেছেন, আসন্ন ঢাকার দুই সিটি ভোটে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দায়িত্ব পালনে কারো কোনো বিচ্যুতি হলে ছাড় দেয়া হবে না। কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে। কোনো বিচ্যুতি হলে কাউকে ছাড়বো না। কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেব।

বুধবার (২২ জানুয়ারি) বিকেলে নির্বাচন ভবনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে বৈঠকে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ হুঁশিয়ারি দেন।

তিনি বলেন, আমি চাই না কোনো অভিযোগ, অনিয়ম, বিচ্যুতি যেন আমাদের পর্যন্ত আসে। ছোটখাটো কোনো সমস্য হলে স্ব স্ব বাহিনীর প্রধানের মাধ্যমে নিষ্পত্তি করবেন। কোনো বিচ্যুতি হলে কাউকে ছাড়বো না। কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেব।

সিইসি বলেন, কোনো গাফিলতি হলে পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাবের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মাধ্যমে আপনারা নিজেরাই তা সমাধান করবেন। কোনো বিচ্যুতি হলে সমাধান করবেন, যেন ভোটাররা নির্ভয়ে ভোট দিতে পারে, সে অবস্থা সৃষ্টি করতে হবে।

তিনি বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য আমাদের নিষ্ঠা ও একাগ্রতা রয়েছে। আশা করি সুষ্ঠু, অবাধ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য আপনাদের সহায়তা পাবো। অতীতে যেমন সহায়তা পেয়েছি, আশা করি এবারও পাবো।

কেএম নূরুল হুদা বলেন, আমাদের কাছে প্রায়ই অভিযোগ আসে, কেন্দ্রে এজেন্ট নেই। আপনারা নিশ্চয় এজেন্টদের বাড়ি থেকে কেন্দ্রে আনবেন না। কিন্তু কেন্দ্র থেকে কোনো প্রার্থীর কোনো এজেন্ট যেন কেউ বের করে দিতে না পারে।

নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহারের বিষয়ে তিনি বলেন, আমাদের ইভিএম অনেক উন্নতমানের। এর মাধ্যমে ভুয়া ভোট দেয়া সম্ভব নয়।

ভোটে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় করণীয় নির্ধারণের এ বৈঠকে তিন নির্বাচন কমিশনার, ইসি সচিব, বিভিন্ন বাহিনীর প্রধান ও মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, বৈঠকের জন্য প্রস্তুত করা কার্যপত্রে নির্বাচনী নিরাপত্তার উল্লেখযোগ্য পরিকল্পনাগুলোর মধ্যে ছিল- গুরুত্বপূর্ণ এলাকা ও কেন্দ্রগুলোতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা। ভোটের দিন কেন্দ্রের চৌহদ্দির মধ্যে ধূমপান নিষিদ্ধ ও দিয়াশলাই, লাইটারসহ দাহ্য পদার্থ বহনে কড়াকড়ি আরোপ করা, নির্বিঘ্নে এবং স্বাচ্ছন্দ্যে ভোটারদের কেন্দ্রে যাওয়া-আসার জন্য আগে থেকেই নির্বাচনী এলাকায় নিবিড় টহলের ব্যবস্থা নেয়া।

সারাদিন/২২ জানুয়ারি/ আরটিএস