জমির আইল উঠিয়ে দিলে দারিদ্র্য বিমোচন হবে: এলজিআরডি মন্ত্রী

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম বলেছেন, জমির আইল উঠিয়ে সমবায় ভিত্তিক চাষাবাদ সারাদেশে কৃষকদের দারিদ্র্য বিমোচন ও অর্থনৈতিক মুক্তি অর্জনে ভূমিকা রাখবে। সমবায়ের ভিত্তিতে জমির আইল উঠিয়ে সম্মিলিত চাষাবাদ পদ্ধতি ১৯৭৫ সালেই বঙ্গবন্ধু পরিকল্পনা করেছিলেন। বঙ্গবন্ধুর দর্শনই আমরা আজ বাস্তবায়ন করছি।

শুক্রবার (১৭ জানুয়ারি) কুমিল্লা জেলার লাকসাম উপজেলার নোয়াপাড়ায় বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমি (বার্ড) কর্তৃক গৃহীত “কৃষির যান্ত্রিকীকরণ ও যৌথ খামার ব্যবস্থাপনা” শীর্ষক প্রকল্পের উদ্বোধন এবং স্থানীয় কৃষকদের সাথে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, সনাতন পদ্ধতিতে চাষাবাদের ফলে সরকারের সব ধরণের ভর্তুকীর পরও সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কৃষকরা তাদের পণ্যের ন্যয্য মূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছিল। এ পরিস্থিতিতে কৃষির উৎপাদন ব্যয় হ্রাসের উপায় উদ্ভাবন অত্যন্ত জরুরী হয়ে পড়েছিল। আধুনিক কৃষি যন্ত্রপাতির ব্যবহার করে যৌথ খামার প্রতিষ্ঠার ফলে কৃষি পণ্যের উৎপাদন খরচ হ্রাস পাবে এবং কৃষি হবে কৃষকের জন্য একটি লাভজনক জীবিকা, এছাড়াও আমার বিশ্বাস, পরীক্ষামূলক এ প্রকল্পটি একটি উন্নয়ন মডেল হিসাবে দাঁড়াবে এবং কৃষিতে আরেকটি নতুন বিপ্লব সূচিত হবে।

স্থানীয় চেয়ারম্যান ওমর ফারুক এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের সচিব মোঃ রেজাউল আহসান, কুমিল্লা বার্ডের মহাপরিচালক মোঃ শাহজাহান।

সারাদিন/১৭জানুয়ারি/টিআর