মহিলা ও শিশু মন্ত্রণালয়ের ডিজিটাল সার্ভিস ডিজাইন ল্যাবে ৩৬টি সেবা

তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিবেদকতথ্যপ্রযুক্তি প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:৩৫ অপরাহ্ণ, ১০/০১/২০২০

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়-এর আয়োজনে এবং এটুআই-এর সহযোগিতায় বৃহস্পতিবার (০৯ জানুয়ারি) মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরে আয়োজিত হলো মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়-এর ডিজিটাল সার্ভিস বাস্তবায়ন পরিকল্পনা সমন্বয়করণ ও ডিজাইন ল্যাবের সমাপনী অনুষ্ঠান।

অনু্ষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়-এর প্রতিমন্ত্রী বেগম ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা, এমপি এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনাইদ আহ্‌মেদ পলক, এমপি; তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ-এর সিনিয়র সচিব জনাব এন এম জিয়াউল আলম, পিএএ এবং মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ-এর সচিব (সমন্বয় ও সংস্কার) জনাব শেখ মুজিবুর রহমান এনডিসি। অনু্ষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়-এর সচিব জনাব কাজী রওশন আক্তার।

প্রতিমন্ত্রী বেগম ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা, এমপি বলেন, দেশ প্রযুক্তিগতভাবে দক্ষ হলে জনগণকেও দক্ষতার সাথে সেবা প্রদান করা যায়। তিনি আশা করেন পরিকল্পিত সেবাগুলো ডিজিটাল করার মাধ্যমে সুবিধাবঞ্চিত নারীরা স্বল্প খরচে, কম যাতায়াতে সেবা গ্রহণ করতে পারলে এই উদ্যোগ সফলতার মুখ দেখবে। মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সকল সেবা ডিজিটাল করা হলে সারা দেশের নারীরা কোন ঝামেলা ছাড়াই ভিজিডি কার্ড, মাতৃকালীন ভাতা এবং নারী উদ্যোক্তারা সঠিক সময়ে তাদের প্রশিক্ষণ পাবেন ও উৎপাদিত পণ্য বাজারজাত করতে পারবেন।

জুনাইদ আহ্‌মেদ পলক, এমপি বলেন, পরিবার থেকে শুরু করে রাষ্ট্র পর্যন্ত যেসব প্রতিষ্ঠানে নারীর নেতৃত্ব আছে সেখানেই আছে সাফল্য, শান্তি এবং আনন্দ। নারী ক্ষমতায়নের পূর্বশর্ত হচ্ছে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি এবং স্বচ্ছলতা। এ শর্ত পূরণে সরকার অনেক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। স্বচ্ছতার সাথে, স্বল্প খরচে নারীদের জন্য নারীবান্ধব সেবাগুলো তাদের হাতের মুঠোয় পৌঁছে দেওয়া ডিজিটাল সার্ভিস ডিজাইন ল্যাবের মূল লক্ষ্য। ১ম মেয়াদে প্রাথমিক তথ্য প্রদান ও ২য় মেয়াদে অবকাঠামো নিশ্চিত করা এবং ৩য় মেয়াদে সরকারের লক্ষ্য শতভাগ সেবা ডিজিটাল মাধ্যমে জনগণের হাতে পৌঁছানো।

তিনি বলেন, মুজিববর্ষে ১০০টি সার্ভিস অনলাইনে নিয়ে আসা হবে যার মাধ্যমে ১০ কোটি মানুষ সেবা নিতে পারবে। এক থেকে দেড় হাজার সার্ভিস ডিজিটাল নারী ৩৬০ ডিগ্রী অ্যাপে আগামী ৬ মাসে যোগ করা হবে যার ফলে মুজিববর্ষে সাড়ে আট কোটি নারীকে ডিজিটাল সেবা দেওয়া যাবে। ২০২০ এর মাঝে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়-কে শতভাগ ডিজিটাল মন্ত্রণালয়, ২০২১ এর মাঝে ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন এবং ২০৪১ এর মাঝে মেধাবী ও উন্নত বাংলাদেশ গড়ে তোলার প্রত্যাশা ও প্রত্যয় ব্যক্ত করেন মাননীয় প্রতিমন্ত্রী।

ডিজিটাল সার্ভিস ডিজাইন ল্যাবে মোট ৩৬টি সেবার ক্ষেত্রে (০৬টি জিটুবি ও ৩০টি জিটুসি) ০৭টি গ্রুপের পর্যালোচনায় মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়-এর একটি ইন্টিগ্রেটেড ডিজিটাল সার্ভিস ডেলিভারি প্ল্যাটফর্মের বিষয় উঠে এসেছে। যার মধ্যে ডে কেয়ার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম, ডিজিটাল মিউজিয়াম অ্যান্ড ভার্চুয়াল আর্ট গ্যালারি সিস্টেম, ই-কমার্স অ্যান্ড সেলস্ সেন্টার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম, মনিটরিং অ্যান্ড রিপোর্টিং ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম, ই-লাইব্রেরি অ্যান্ড পাবলিকেশনস ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম, ডিজিটাল নারীসহ মোট ১১টি সিস্টেম উল্লেখযোগ্য। ডিজিটাল সার্ভিস রোডম্যাপ-২০২১ কর্মশালায় সনাক্তকৃত সিস্টেমসমূহ দ্রুত বাস্তবায়নের জন্য আইসিটি বিভাগের আওতাধীন এবং মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ও ইউএনডিপি এর সহায়তায় পরিচালিত এটুআই-এর ডিজিটাল সার্ভিস এক্সিলারেটর টিমের সহযোগিতায় মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় গত ০৪ জানুয়ারি থেকে ৬ দিনব্যাপী ‘ডিজিটাল সার্ভিস ডিজাইন ল্যাব’ আয়োজন করেছে। এই ল্যাবে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়-কেন্দ্রিক সকল গুরুত্বপূর্ণ সেবা প্রদান পদ্ধতি বিশ্লেষণের ক্ষেত্রে সেবা প্রদানের ধাপ, প্রয়োজনীয় কাগজপত্র, সেবা প্রাপ্তির সময় ও খরচ এবং সেবা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে বিদ্যমান সমস্যাসমূহ বিবেচনায় আনা হয়েছে। সেবাপ্রাপ্তিতে নাগরিকদের সময়, অর্থ এবং যাতায়াত হ্রাসের লক্ষ্যে সেবা প্রদান পদ্ধতি বিশ্লেষণের মাধ্যমে সেবাসমূহকে সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন তৈরির পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। ডিজাইন ল্যাব কর্মশালায় মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়-এর ৪৯জন কর্মকর্তা, ১০জন সরকারি-বেসরকারি ডিজিটাল সার্ভিস এনালিস্ট, ৮জন এটুআই-এর কর্মকর্তা এবং ১৮জন সংশ্লিষ্ট সেবাগ্রহীতা অংশগ্রহণ করেন।

সারাদিন/১০ জানুয়ারি/ আরটি