জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে হামলার প্রতিবাদে পুরো ভারত জুড়ে বিক্ষোভ

আন্তর্জাতিক ডেস্কআন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২:০১ অপরাহ্ণ, ০৬/০১/২০২০

ভারতের রাজধানী দিল্লির জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা মুখোশধারীদের হামলায় আক্রান্ত হওয়ার পর পুরো ভারত জুড়ে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে। রোববারের (৫ জানুয়ারি) হামলার পরই রোববার মধ্যরাতে মুম্বাইয়ের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের হাজার হাজার শিক্ষার্থী রাস্তায় নেমে আসে।

আর বিক্ষোভ হয়েছে কলকাতা, পুনে সহ বিভিন্ন শহরেও। আর হামলা চালিয়েছে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ (আরএসএস) সমর্থিত অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদের কর্মীরা। তবে বিক্ষোভকারীদের দাবি ভিন্নমত দমন করতেই এই হামলা চারিয়েছে তারা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন,স্থানীয় সময় রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে হঠাৎ করে নেহরু বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে ঢুকে পড়ে অর্ধশত মুখোশধারী। হাতে বড় বড় লাঠি আর পাথর নিয়ে একের পর এক হোস্টেলে তাণ্ডব চালাতে থাকে তারা। মুহূর্তের মধ্যে পুরো ক্যাম্পাসে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। আতঙ্কিত শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত ছোটাছুটি করতে থাকে। সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত ফুটেজে দেখা গেছে,শিক্ষার্থীদের তাড়া করে বেড়াচ্ছে মুখোশধারী সন্ত্রাসীরা।

ওই ঘটনার পরই আলীগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা মোমবাতি মিছিল বের করে নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের প্রতি সংহতি জানায়। পুনের ফিল্ম ও টেলিভিশন ইন্সটিটিউট এবং কলকাতার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও বিক্ষোভ করেছে।

নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে হামলার নিন্দা জানিয়েছে জামিয়া টিচার্স অ্যাসোসিয়েশনও (জেটিএ)। তাদের অভিযোগ শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার ঘটনায় মুখোশধারীদের সহায়তা দিয়েছে প্রশাসন।

নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও ফ্যাকাল্টি সদস্যদের অভিযোগ, রবিবার সন্ধ্যায় হামলার সময় পুলিশ ও ক্যাম্পাসের বেসরকারি নিরাপত্তাকর্মীরা নীরব ছিল। ভাঙচুর চালিয়ে সন্ত্রাসীদের বেরিয়ে যেতেও তাদের সহায়তা করা হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছে তারা।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি ভারতে পাস হওয়া সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনবিরোধী বিক্ষোভে অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়। গত মাসে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের ওপর লাঠিচার্জ করে পুলিশ।

সারাদিন/৬জানুয়ারি/টিআর