মাদ্রাসা শিক্ষকের বক্স খাটের মধ্যে শিশু আদিলের লাশ

গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার জাঙ্গালিয়ায় মরাশ জান্নাতুল বাকী হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানায় এক শিশু আদিল নামের এক শিক্ষার্থীকে শ্বাসরোধ করে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। স্থানীয়দের সহযোগীতায় পুলিশ বুধবার (১ জানুয়ারি) রাত ৯টার দিকে মাদ্রাসার এক শিক্ষকের বক্স খাটের ভেতর থেকে সেই শিশুটির লাশ উদ্ধার করে।

নিহত আদিল (৪) ওই মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক মুফতি জোবায়ের আহমেদের ছেলে। সে তার বাবা মায়ের সঙ্গে মাদ্রাসায় থাকতো এবং একই মাদ্রাসার ছাত্রও ছিল। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ওই মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক জোনায়েত আহমেদ (৩০) ও মসজিদের মুয়াজ্জিন খাইরুল ইসলামকে (২৫) আটক করেছে পুলিশ।

স্থানীয় সূত্র জানায়, বুধবার বিকেলে মাদ্রাসার পাশের মাঠে খেলতে গিয়ে নিখোঁজ হয় আদিল। তাকে খুঁজে না পেয়ে মসজিদের মাইকে ঘোষণা দেওয়া হয়। এতে গ্রামবাসী এসে মাদ্রাসার পুকুরসহ বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করে আদিলককে না পেয়ে মাদ্রাসার কক্ষে খুঁজতে থাকে।

একপর্যায়ে সহকারী শিক্ষক জোনায়েত আহমেদ ও খাইরুল ইসলামের চলাফেরায় স্থানীয়দের সন্দেহ হয়। এতে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পরে আদিলকে শ্বাসরোধে হত্যা করেছেন বলে স্বীকার করেন তারা। তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী জোনায়েদ আহমেদের কক্ষে থাকা বক্স খাটের কেবিনেটের ড্রয়ার থেকে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

খবর পেয়ে বুধবার রাত ৯টার দিকে মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে ময়নাতদন্তের জন্য তা গাজীপুর শহীদ তাজ উদ্দিন আহমেদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাল মর্গে পাঠানো হয়।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কালিগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম মিজানুল হক বলেন, দুই শিক্ষকের মধ্যে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে। এতে জড়িত সন্দেহে ওই দুইজনকে আটক করা হয়েছে।

সারাদিন/২জানুয়ারি/টিআর