ভারতে করোনার টিকা দেয়া শুরু

সারাদিন ডেস্কসারাদিন ডেস্ক
প্রকাশিত: ৪:২২ অপরাহ্ণ, ১৬/০১/২০২১

প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে করোনাভাইরাসের টিকা দেয়া শুরু হয়েছে ভারত জুড়ে। শনিবার (১৬ জানুয়ারি) স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ১০টায় এ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

ভারত নিজ দেশের নাগরিকদের সেরাম ইনস্টিটিউটের কেভিশিল্ড এবং ভারত বায়োটেকের কোভ্যাক্সিন প্রয়োগ করবে।

ভারত সরকার জানিয়েছে, প্রথম দফায় করোনা হাসপাতালে যারা কাজ করছেন এমন চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালেও টিকাদান কর্মসূচি চলবে।

দ্বিতীয় ধাপে পুলিশ, নিরাপত্তা কর্মী, দমকল কর্মীদের মতো করোনা যোদ্ধারা প্রতিষেধক পাবেন। প্রশাসনিক স্তরে কর্মরত বিডিও, এসডিও, পঞ্চায়েত সদস্য এবং পৌরসভার কর্মীরা প্রতিষেধক পাবেন তৃতীয় ধাপে।

চতুর্থ দফায় প্রতিষেধক পাবেন পঞ্চাশোর্ধ্ব এবং পঞ্চাশের নীচে কোমর্বিডিটি থাকা মানুষ। পঞ্চম দফায় সাধারণ মানুষের টিকাকরণের পরিকল্পনা রয়েছে।

ভারতীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, প্রথম দফায় স্বাস্থ্যকর্মীসহ সামনের সারির তিন কোটি মানুষকে বিনামূল্যে টিকা দেওয়া হবে। এ পর্ব শেষ করতে কয়েক মাস লাগতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

Nagad

জানা গেছে, টিকা পেতে প্রথমে হাসপাতাল বা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে গিয়ে ‘কোউইন’ অ্যাপে নাম ও পরিচয় নথিভুক্ত করতে হবে। তারপর প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা হবে তাদের। সেখান থেকে আলাদা ভাবে ‘অবজারভেশন রুম’-এ বেশ কিছু ক্ষণ রেখে পর্যবেক্ষণ করা হবে। তারপর শরীরে প্রয়োগ করা হবে কোভিড টিকা।

কোভিশিল্ডের দু’টি ডোজ করোনার বিরুদ্ধে কার্যকর বলে প্রমাণিত। তাই প্রথম ডোজ নেওয়ার পর দ্বিতীয় ডোজটিও নেওয়া বাধ্যতামূলক। প্রথম ডোজটি নেওয়ার পর কবে, কোথায় দ্বিতীয় ডোজটি নিতে হবে, সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির মোবাইলে সেই তথ্য চলে যাবে। আর প্রথম ডোজটি যদি কেউ কোভিশিল্ড নেন, দ্বিতীয় ডোজটিও কোভিশিল্ডেরই হতে হবে।


সারাদিন/১৬জানুয়ারি/এএইচ