দীর্ঘদিন পর ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

বিশেষ প্রতিনিধিবিশেষ প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ৯:৩১ পূর্বাহ্ণ, ২৮/১২/২০১৯

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭১ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ৪ জানুয়ারি। এবার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে সংগঠনটির প্রাক্তন ও বর্তমান নেতা-কর্মীদের পুনর্মিলনী হবে। সেই সাথে আরো আনন্দের খবর প্রতিষ্ঠানটির এই প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে যাচ্ছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জানা গেছে, ৪ জানুয়ারি রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন তিনি। ওই দিন বিকেল তিনটায় ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান আরম্ভ হবে।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭১ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী চার জানুয়ারি। এবার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে সংগঠনটির প্রাক্তন ও বর্তমান নেতা-কর্মীদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান আয়োজন করেছে ছাত্রলীগ। ওই দিন বিকেল তিনটায় ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান আরম্ভ হবে।

সূত্র জানায়, এবার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে দীর্ঘদিন পর পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান করতে যাচ্ছে ছাত্রলীগ। সাবেক ছাত্রলীগ নেতা হিসেবে তাতে উপস্থিত থাকতেই এ অনুষ্ঠানে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী।

চার জানুয়ারি ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপস্থিত থাকবেন। ওইদিন প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর পাশাপাশি ছাত্রলীগের সাবেকদের নিয়ে পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানও হবে বলে জানান এ বিষয়ে ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য।

ছাত্রলীগ সূত্রে জানা গেছে, ৪ জানুয়ারি সকাল সাড়ে ৭টায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন এবং ১০টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হলে কেক কেটে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা হবে। বিকালে সংগঠনটির সাবেক নেতাকর্মীদের নিয়ে অনুষ্ঠিত হবে পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান। আর পরদিন পাঁচ জানুয়ারি রক্তদান কর্মসূচি, এরপর শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ, শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরণের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান শেষ হবে।

সূত্র বলছে, ইতোমধ্যে প্রায় সবার কাছে আমন্ত্রণপত্র পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। এ অনুষ্ঠান সফল করতে নেওয়া হচ্ছে সার্বিক প্রস্তুতি। শুক্রবার রাতে ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে এ নিয়ে বৈঠক করেছেন সংগঠনটি দেখভালের দায়িত্বে নিয়োজিত আওয়ামী লীগের চার নেতা জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, বাহাউদ্দিন নাছিম ও বিএম মোজাম্মেল হক।

সারাদিন/২৮ ডিসেম্বর/আরটিএস