শৈত্যপ্রবাহে বিপর্যস্ত সিরাজগঞ্জ

সিরাজগঞ্জ সংবাদদাতাসিরাজগঞ্জ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ৬:৩১ অপরাহ্ণ, ২৪/১২/২০১৯

টানা পাঁচদিন ধরে চলা শৈত্যপ্রবাহে সিরাজগঞ্জের জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। ঘন কুয়াশায় ঢাকা রয়েছে পুরো জেলাটি। শীতের তীব্রতা বৃদ্ধির কারণে শ্রমজীবী, দরিদ্র ও নিম্নআয়ের মানুষগুলোর দুর্ভোগও বেড়েছে কয়েকগুণ। এরমধ্যেই শীতবস্ত্রের সংকটে কষ্টে দিনাতিপাত করছে ছিন্নমূলরা।

মঙ্গলবার (২৪ ডিসেম্বর) সকালে ঘন কুয়াশাচ্ছন্ন দেখা গেছে এই সিরাজগঞ্জ। ৫০ মিটার দূরত্বের জিনিসও দেখা যাচ্ছে না। দুপুরে এক ঝলক রোদের আলো চোখে পড়লেও কুয়াশা একেবারে ছাড়েনি। দুপুর গড়িয়ে পড়লে আবারও ঘন কুয়াশাচ্ছন্ন হয়ে পড়ে পুরো শহর। পাঁচদিন ধরেই এমন অবস্থা চলছে।

শহরের রিকশাচালক আমিনুল ইসলাম বলেন, শীতের কারণে গত তিনদিন ধরে কাজে বেরোতে পারিনি। টানাটানির সংসার তাই আজ দুপুরে বাধ্য হয়ে কাজে বের হয়েছি। কিন্তু শহরে লোকজন খুব কম বেরিয়েছি।

যমুনার চরাঞ্চল অধ্যুষিত কাওয়াকোলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল আলীম ভূঁইয়া প্রচণ্ড শীতে এ অঞ্চলের মানুষের জীবনযাপন দুর্বিষহ হয়ে পড়েছে। হতদরিদ্র নদী ভাঙনকবলিত মানুষগুলোর শীতবস্ত্রের অভাব রয়েছে।

সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. রমেশ চন্দ্র বলেন, শীতের প্রকোপে হাসপাতালে ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এ রোগে শিশুরাই বেশি আক্রান্ত হচ্ছে।

জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহম্মেদ জানান, শীতে বিপর্যস্ত হতদরিদ্র মানুষগুলোর জন্য কম্বল বিতরণ অব্যাহত রয়েছে। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ইতোমধ্যে ৫০ হাজারের বেশি কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। রাজশাহী আবহাওয়া দফতরের উচ্চ পর্যবেক্ষক দেবল কুমার মোদক জানান, সিরাজগঞ্জ জেলায় দুপুর পর্যন্ত তাপমাত্রার রেকর্ড করা হয়েছে ১০ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

Nagad

সারাদিন/২৪ডিসেম্বর/টিআর