নীলফামারীতে জেঁকে বসেছে হাড় কাঁপানো শীত, দেখা মেলেনি সূর্যের

নীলফামারীতে বেড়েছে শীতের তীব্রতা। হাড়কাঁপানো কনকনে শীতে অনেকটা স্থবির হয়ে পড়েছে স্বাভাবিক জীবনযাপন। এই শীতে দরিদ্র মানুষের পাশাপাশি গবাদি পশু ও পাখিরাও কাবু হয়ে পড়েছে।

বাংলাদেশের উত্তরের হিমালয় ঘেষা কৃষি নির্ভরশীল জেলা নীলফামারী। হিমালয়ের বরফ ছোঁয়া মৃদু শৈত্য প্রবাহে চার দিনেও দেখা মেলেনি সুর্য্যরে। এর ফলে জেঁকে বসেছে হাড় কাঁপানো শীত। শীতের প্রকোপ ছোবলে স্থবির হয়ে পড়েছে এ অঞ্চলের সাধারণ মানুষের জীবন যাত্রা।

টানা চার দিনের মৃদু শৈত প্রবাহে জেলার কোথাও দেখা মেলেনি সুর্য্যরে। হিমবায়ু আর মৃদু শৈত্য প্রবাহের কারণে নীলফামারী সদর উপজেলাসহ ৫টি উপজেলায় প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষের শরীরে কাঁপন ধরিয়ে দিয়েছে শীত। বিপাকে পড়েছেন এ অঞ্চলের খেটে খাওয়া মানুষজন। উষ্ণ কাপড়ের অভাবে খর-কুটা জ্বালিয়ে শীত নিবারনের চেষ্টা করতে দেখা গেছে ডিমলা উপজেলার পশ্চিম ছাতনাই, পূর্ব ছাতনাই, বাইশপুকুর, পাগলপাড়াসহ তিস্তা নদী বেষ্টিত চরাঞ্চল বাসিদের।

এদিকে, সরকারী হাসপাতালসহ প্রাইভেট ক্লিনিক্ওে বেড়েছে শীত জনিত রোগীর সংখ্যা। বিশেষ করে শিশু ও বয়স্কদের ক্ষেত্রে নাকাল অবস্থায় ফেলেছে এবারের শীত।

সারাদিন/২৩ ডিসেম্বর/আরটি