অ্যাপের মাধ্যমে চিকিৎসা, জয় বাংলা টেলিমেডিসিন অ্যাপের উদ্বোধন

দেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর কাছে মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে চিকিৎসা সেবা পৌছে দেয়ার লক্ষ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপকমিটির উদ্যোগে ‘জয় বাংলা টেলিমেডিসিন অ্যাপ’ ডেভেলপ করা হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার (১৫সেপ্টেম্বর) অ্যাপটি উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। সংসদ ভবনের সরকারি বাসভবন থেকে অনলাইনে যুক্ত হয়ে এই অ্যাপ উদ্বোধন করেন তিনি।

এই অ্যাপের মাধ্যমে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের কাছ থেকে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করতে পারবেন দেশের মানুষ।

এসময় ওবায়দুল কাদের বলেন, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে বিশ্ব টালমাটাল অর্থনৈতিক ও সামাজিক যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙে পড়ার উপক্রম। চিকিৎসকরা নিজেদের ও রোগীর কথা বিবেচনা করে এই মহামারি থেকে বাঁচতে চেম্বারে রোগী দেখা অনেকটা বন্ধ করে দিয়েছিলেন। এই অবস্থায় সময়ের প্রয়োজনে চিকিৎসাসেবায় নতুন ধারার সৃষ্টি হয়েছে। যেটি হলো টেলিমেডিসিন সেবা। করোনাই মূলত এই পথ দেখিয়েছে।

ওবায়দুল কাদের আরো বলেন, দ্রুতগতির ইন্টারনেট ও নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের মাধ্যমে সম্ভব হয়েছে চিকিৎসাসেবা প্রদান করা। অন্যথায় এই সেবা প্রদান করা সম্ভব হতো না। এই সবকিছুই সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী পরিকল্পনা ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বের কারণে। ডিজিটাল বাংলাদেশ ঘোষণা ও ঘোষণা পরবর্তী নানামুখী কল্যাণকামী কর্মকাণ্ডের ফলে আজ আমাদের তরুণরা তথ্যপ্রযুক্তির প্রায় সব খাতেই নিজেদের সংযুক্তি বৃদ্ধি করেছে।

বাংলাদেশের চিকিৎসাখাতে জয় বাংলা টেলিমেডিসিন অ্যাপকে একটি নতুন অধ্যায় উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, জয় বাংলা টেলিমেডিসিন মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে রোগীরা ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারবে। প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবা গ্রহণ করবে। এই অ্যাপে রোগীদের তথ্য সংরক্ষণ থাকবে ফলে এই তথ্য পরবর্তীতে রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণাকাজে ব্যবহার করা যাবে। জয় বাংলা টেলিমেডিসিন অ্যাপের মাধ্যমে মোবাইলে ঘরে বসেই দূর-দূরান্তের রোগীরা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের কাছ থেকে চিকিৎসাসেবা নিতে পারবেন।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন আইইবি’র সহকারী সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী রনক আহসান।

অ্যাপের বিস্তারিত

অ্যাপে ক্যাটাগরিভিত্তিক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের তালিকা, এপয়েন্টমেন্ট সিস্টেম, মেডিক্যাল রেকর্ড আপলোড, প্রোফাইল ম্যানেজমেন্ট ইত্যাদি সুবিধা থাকবে। এতে একটি ইন্টারেক্টিভ সোশ্যাল মিডিয়া সংযুক্ত করা হয়েছে। অ্যাপে রোগীদের তথ্য সংরক্ষিত থাকবে, ফলে এই তথ্য পরবর্তীতে রোগ নিয়ন্ত্রণে গবেষণার কাজে ব্যবহার করা যাবে। অ্যাপটি বর্তমানে এন্ড্রয়েড সংস্করণে রয়েছে। শিগগির আইওএস সংস্করণ যুক্ত করার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন সংশ্লিষ্টরা।