নতুন পেঁয়াজ আসলে স্বাভাবিক হবে বাজার, কিন্ত কবে?

নিজস্ব প্রতিবেদকনিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০:০৬ পূর্বাহ্ণ, ১৫/০৯/২০২০

পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দিয়েছে ভারত। দেশটিতে সোমবার বিকালে বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেয় ভারত। তবে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলছেন, এখনো রফতানি বন্ধের খবর নেই। ভারতের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে।

এদিকে এই ঘটনার পরে লাফিয়ে লাফিয়ে পেঁয়াজের দাম বাড়ায় ভোগান্তিতে সাধারণ মানুষ। তবে সে তুলনায় লাভবান হচ্ছে না কৃষক।
সরবরাহ কম থাকা ও নজরদারীর অভাবে এ অবস্থা বলে মনে করছেন ব্যবসায়ীরা। কৃষি কর্মকর্তারা বলছেন, ভারতীয় পেঁয়াজের দাম বেশি হওয়ায় বাজার ঊর্ধ্বমুখী। বলা হচ্ছে, নতুন পেঁয়াজ আসলে স্বাভাবিক হবে বাজার।

এখন বাজারে পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধি রুখতে সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) দুপুর ১২টার দিকে ভারত সরকার হিলি কাস্টম কর্মকর্তা জানিয়েছে, সোমবার থেকে সব ধরনের পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ থাকবে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত। এ সংক্রান্ত সরকারি প্রজ্ঞাপন এখনও জারি হয়নি, তবে অচিরেই জারি হবে বলে তিনি জানিয়েছেন। একই সঙ্গে পেঁয়াজ আমদানির জন্য যেসব এলসি খোলা রয়েছে এবং টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে সেগুলোর বিপরীতেও কোনও পেঁয়াজ রফতানি হবে না।

ব্যবসায়ীরা মনে করছেন, বাজারে সরবরাহ কম থাকা ও অতি বৃষ্টিতে পঁচনের কারণে দাম বাড়ছে। তবে পাবনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক আজাহার আলী দাবি ভারতীয় পেঁয়াজের দাম বেশি হওয়ায় বাজার ঊর্ধ্বমুখী।

বন্যার কারণে ফরিদপুরের অনেক এলাকায় পেঁয়াজের আবাদ হয়নি। আবার মাঠেই পঁচে গেছে অনেক পেঁয়াজ। এ অবস্থায় আগাম বা মুড়িকাটা পেঁয়াজ বাজারে না আসলে আরও দুই থেকে তিনমাস দাম বৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে বলে জানান উপজেলার কৃষি অফিসার মোহাম্মদ আবুল বাশার।

রাজবাড়িতে স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে দুই লাখ টন পেঁয়াজ বিভিন্ন স্থানে রপ্তানি হয়। এর পরেও দেশি পেঁয়াজের দাম বাড়ায় নজরদারীর অভাবকে দুষছেন ব্যবসায়ীরা।

এদিকে, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি জানিয়েছেন, হঠাৎ করেই ভারতের পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধের যৌক্তিক কারণ খুঁজে পাচ্ছেনা বাংলাদেশ। তবে গতবারের মত সংকট হবে না বলে আশ্বস্ত করেছেন তিনি।