সিরিয়ায় হামলায় নিহত ২৬, গৃহহীন ১৮ হাজার মানুষ

আন্তর্জাতিক ডেস্কআন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১:৫৪ অপরাহ্ণ, ২১/১২/২০১৯

সিরিয়ায় হামলার মুখে ইদলিব ছেড়ে তুরস্কের সীমান্ত সংলগ্ন এলাকার দিকে পালাতে শুরু করেছে সেখানকার হাজার হাজার বেসামরিক মানুষ। শুক্রবার (২০ ডিসেম্বর) ওই প্রদেশে সিরীয় ও রুশ বাহিনীর বিমান হামলা চলছে বলে জানা গেছে।

আর এতথ্যগুলো জাতিসংঘের বরাত দিয়ে কাতারভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম আল জাজিরা দিয়েছে। এছাড়া ইদলিবে শুক্রবার ও বৃহস্পতিবার গত দু’দিনের হামলায় নিহত হয়েছেন কমপক্ষে ২৬ জন। আহত হয়েছেন আরো বহু মানুষ।

শুক্রবার জাতিসংঘের পর্যবেক্ষকরা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ইদলিব প্রদেশ ছেড়েছে কমপক্ষে ১৮ হাজার বেসামরিক মানুষ। আর এ ঘটনাকে নতুন ধরনের মানবিক চ্যালেঞ্জ হিসাবে উল্লেখ করেছে আন্তর্জাতিক এই সংস্থাটি। এখনও ওই অঞ্চলে বিমান থেকে বোমা নিক্ষেপ অব্যাহত রয়েছে বলেও সংস্থাটি জানিয়েছে।

এদিকে রুশ বিমান হামলায় শুক্রবার সকালে ইদলিবে আরো সাতজন নিহত হয়েছে। এর আগে বৃহস্পতিবার মারা গেছে সিরিয়ার আরো ১৯ বেসামরিক নাগরিক।

হামলার মুখে গত ৫ দিনে তুরস্কের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে আশ্রয় নিয়েছে কমপক্ষে ৮০ হাজার সিরীয় নাগরিক। ওই এলাকাগুলোতে আগে থেকেই অবস্থান করছে ১০ লাখের মত সিরীয় শরণার্থী। যদিও গত বছরের সেপ্টেম্বরে স্বাক্ষরিত এক চুক্তিতে ইদলিবকে বেসামরিক অঞ্চলটি হিসাবে ঘোষণা করেছিল রাশিয়া ও তুরস্ক।

তবে ওই চুক্তির ফলে পরিস্থিতির তেমন একটা উন্নতি হয়নি। ওই ঘোষণার পর থেকে ইদলিবে রুশ সমর্থিত সিরিয়ার সরকারি বাহিনীর বিমান হামলাসহ বিভিন্ন হামলায় নিহত হয়েছেন কমপক্ষে ১৩০০ মানুষ। আর ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে গেছে আরো লাখ লাখ মানুষ।

ইদলিবের আনুমানিক জনসংখ্যা ছিলো ২৪ লাখ। তবে বর্তমানে এর অর্ধেকেরও বেশি বাসিন্দা বাস্তুচ্যুত হয়ে তুর্কি সীমান্তবর্তী শরণার্থী শিবিরে ঠাঁই নিয়েছেন।

সারাদিন/২১ডিসেম্বর/টিআর