১৫ সেপ্টেম্বর থেকে অবৈধ বিলবোর্ড উচ্ছেদ করা হবে: মেয়র আতিকুল

নিজস্ব প্রতিবেদকনিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৬:৫৬ অপরাহ্ণ, ১২/০৯/২০২০

অনুমতি ছাড়া আর ট্যাক্স না দিয়ে কোথাও কোনো সাইনবোর্ড ঝুলতে দেয়া হবে না। ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে অবৈধ বিলবোর্ড উচ্ছেদ করা হবে বলেও জানান ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, আগামীকাল এবং পরশু দিনের মধ্যে অনুমোদনহীন সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড ইত্যাদির অনুমোদন নিয়ে নিন। যারা অনুমোদন নেবেন তাদের সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড ভাঙা হবে না।

শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) গুলশানে বিচারপতি শাহাবুদ্দিন আহমদ পার্কের উদ্বোধনকালে এ কথা জানান তিনি।

তিনি বলেন, সিটি কর্পোরেশনের পার্ক কাউকে দখল করে রাখতে দেয়া হবে না। পহেলা অক্টোবর থেকে ইলেক্ট্রিক খুঁটি থেকে অননুমোদিত তারও অপসারণ করা হবে।

কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের স্বার্থে শহরকে নষ্ট করতে দেয়া হবে না। দখল হওয়া আরও ২৭টি পার্ক উদ্ধার করার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। শহরকে পরিচ্ছন্ন করতে শিগগিরই অবৈধ বিলবোর্ড উচ্ছেদ অভিযান শুরুর কথাও জানান মেয়র।

মেয়র বলেন, আমরা এই শহরে সুন্দরভাবে থাকতে চাই। কিন্তু কেউ কেউ নিজের স্বার্থে সবার স্বার্থকে জলাঞ্জলি দিচ্ছেন। অনেকে বড় বড় হাউজিং করছেন, ব্যানার-সাইনবোর্ড দিয়ে ব্যবসা করছেন। ব্যবসা করেন ভালো কথা, কিন্তু সেটারও ট্যাক্স দিতে হবে। ঢাকা শহরকে আমরা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করছি, আমরা ডেঙ্গু থেকে নগরবাসীকে রক্ষা করার জন্য কাজ করছি, বর্জ্য অপসারণের কাজ করছি। কিন্তু ট্যাক্স দেব না, এটা হতে পারে না। এটি হতে দেওয়া যাবে না।

প্রয়াত মেয়র আনিসুল হককে স্মরণ করে মেয়র আতিক বলেন, ঢাকার পার্ক, খেলার মাঠ উন্নয়নে আনিস ভাইয়ের একটি স্বপ্ন ছিল। তার প্রতিটি স্বপ্নকে আমরা একে একে সফল করব। এই পার্কে ১৭শ’ গাছ আছে। কোন গাছ কাটা হয়নি। জনগণকে, স্থানীয় কমিউনিটিকে সম্পৃক্ত করে এই পার্কের ডিজাইন করা হয়েছে। এই পার্কে ইনডোর জিমনেশিয়াম আছে। আউটডোরেও জিমনেশিয়াম আছে। এই পার্কের ভেতরে একটি কফিশপও আছে। এই পার্কে এলে যে কারো মন ভালো হয়ে যাবে। গোস্বা নিবারণের জন্য ঘরে থাকতে হবে না, এই পার্কে আসলেই হবে। এখানে একটি মুজিব কর্নার রয়েছে, একটি লাইব্রেরি আছে সেখানে।

বিচারপতি শাহাবুদ্দিন আহমদ পার্ক রক্ষণাবেক্ষণ সম্পর্কে মেয়র বলেন, এই পার্ক উন্নয়নে ১৭ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে। এই পার্ক দেখাশোনার দায়িত্ব আমাদের সবার। এই পার্কের সম্পদ আমাদের সবার, এখানে কিছু নষ্ট করা যাবে না। সবাই মিলে এটি রক্ষণাবেক্ষণ করতে হবে।

১৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. মফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে পার্কের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল আর মিলার, ভারতের রাষ্ট্রদূত রীভা গাঙ্গুলি দাশ, সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য নাহিদ এজাহার, ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সেলিম রেজা, প্রকল্প পরিচালক ড. তারিক বিন ইউসুফ এবং স্থপতি ইকবাল হাবিব বক্তব্য রাখেন।