স্কুলছাত্রী হত্যাকারীর কঠোর শাস্তির দাবীতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

ঠাকুরগাঁও সংবাদদাতাঠাকুরগাঁও সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ৭:৩১ অপরাহ্ণ, ২০/১২/২০১৯

নিখোঁজের ৪ দিন পরে হত্যাকারীর বাসার নির্মাণাধীন টয়লেটের মাটি খুঁড়ে উদ্ধার হওয়া ঠাকুরগাঁও সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সুমনা হকের(৯) হত্যাকারী কিশোর রিয়াজ আহম্মেদ কাননের কঠোর শাস্তির দাবীতে সড়কে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেছে ঠাকুরগাঁওয়ের সর্বস্তরের শিক্ষার্থীরা।

শুক্রবার (২০ ডিসেম্বর) দুপুরে ঠাকুরগাঁও জেলার সর্বস্তরের ছাত্রছাত্রীরা মিলে বড়মাঠ প্রাঙ্গণ থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। বিক্ষোভটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে শহরের চৌরাস্তা মোড়ে গিয়ে শেষ হয়।

পরে সেখানে এক মানব-বন্ধনে বক্তব্য দেন বিভিন্ন স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা। মানববন্ধনে জেলার বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শতাধিক শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহন করেন।

উল্লেখ্য, গত ১৯ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার রাতে শহরের গোয়ালপাড়া এলাকায় ইয়াসিন হাবিব কাননের বাসার নির্মাণাধীন টয়লেটের মাটি খুঁড়ে শিশু সুমনা হকের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

উদ্ধারকৃত সুমনা হক শহরের গোয়ালপাড়া এলাকার জুয়েলের মেয়ে ও সে ঠাকুরগাঁও সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেণীর ছাত্রী ছিলো। অপরদিকে আটককৃত রিয়াজ আহম্মেদ একই এলাকার ইয়াসিন হাবীব কাননের ছেলে ও সে ঠাকুরগাঁও সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণীর ছাত্র।

পুলিশ জানায়, ১৬ ডিসেম্বর নিজ এলাকা থেকে নিখোঁজ হয় সুমনা নামের এই শিশুটি। পরে তার বাবা থানায় একটি নিখোঁজ জিডি করে। এরপর মেয়ের পরিবারের সাথে কথা বলা হলে তারা জানান পাশের বাসায় খেলতে যায় শিশুটি। তারপর থেকেই তাকে খুঁজে পাওয়া যায়নি।তথন থেকেই ওই এলাকার ইয়াসিন হাবীব কাননের বাসায় নজরদারি শুরু করা হয়। অবশেষে ইয়াসিন আলীর ছেলে রিয়াজকে সন্দেহ হলে বৃহস্পতিবার রাতে আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। পরে তাকে জিজ্ঞাবাদের মাধ্যমে হত্যার বিষয়টি স্বীকার করে সে। এরপর তার দেওয়া তথ্য মতে তার বাসার নির্মাণাধীন টয়লেটের ভিতরে মাটি খুঁড়ে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করা হয়।