ভারতে ১৪৪ ধারা উপেক্ষা করে অব্যাহত বিক্ষোভ, নিহত ৩

আন্তর্জাতিক ডেস্কআন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১:৫৮ পূর্বাহ্ণ, ২০/১২/২০১৯

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরুদ্ধে ভারতজুড়ে বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে। এতে ছড়িয়ে পড়া ক্ষোভের আগুনে রক্তাক্ত হল কর্ণাটক ও উত্তর প্রদেশে। এই দুই শহরে পুলিশের পিস্তলের গুলিতে মারা গেছেন তিন বিক্ষোভকারী। আর গ্রেফতার করা হয়েছে হাজারো মানুষকে।

বৃহস্পতিবার (১৯ ডিসেম্বর) কর্ণাটক প্রদেশের ব্যাঙ্গালোরে শহরে ব্যাপক বিক্ষোভ-সংঘর্ষ চলে। এসময় সময় পুলিশের পিস্তলের গুলিতে দুইজন নিহত হয়েছেন। সেখানে একটি পুলিশ স্টেশনে আগুন ধরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছিল বিক্ষোভকারীরা। এছাড়া উত্তর প্রদেশের লখনৌয়ে গুলিতে মারা গেছেন একজন। দুই শহরেই আহত হয়েছে আরও বহু বিক্ষোভকারী।

বিক্ষোভ নিষিদ্ধ করা হয়েছে রাজধানী দিল্লির অংশ বিশেষে, পুরো উত্তর প্রদেশ ও কর্নাটকে। নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে সেসব স্থানে বৃহস্পতিবার (১৯ ডিসেম্বর) বিক্ষোভ করেছে জনগণ।

ইতিমধ্যে কয়েক হাজার বিক্ষোভকারীকে আটকও করেছে দেশটির পুলিশ। আটক করা হয়েছে রাজনীতিক, ইতিহাসবিদসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিদেরও।

পুলিশের পক্ষ থেকে গুলির বিষয়টি অস্বীকার করা হলেও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নিহতদের শরীরে বুলেটের আঘাতের কথা জানিয়েছে।

বিবিসি বলছে, বিজেপি সরকার দিল্লি, উত্তরপ্রদেশ রাজ্য, বেঙ্গালোরে শহর ও কর্নাটক রাজ্যের কিছু অংশে বিক্ষোভে নিষেধাজ্ঞা জারি করে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তানে নির্যাতিত ধর্মীয় সংখ্যালঘু, যারা ভারতে গিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন, তাদেরকে নাগরিকত্ব দেয়ার জন্য ১৯৫৫ সালের নাগরিকত্ব আইন সংশোধন করে সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকার।

কিন্তু এ আইনের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, নাগরিক সমাজ, অধিকারকর্মীরা। তারা বলছেন, আইনটি ভারতের ধর্মনিরপেক্ষ সংবিধানের বিরোধী। এর মধ্য দিয়ে সংবিধান লঙ্ঘন করা হয়েছে। কারণ, নাগরিকত্ব সংশোধন আইনে শুধু মুসলিমদের বাদ রাখা হয়েছে। তাদের যুক্তি নাগরিকত্ব নির্ধারণে শুধু ধর্মবিশ্বাসকে ভিত্তি করা উচিত নয়। এর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন বহু বলিউড তারকা।

কিন্তু সমালোচক, সচেতন মহলের এই উদ্বেগ প্রত্যাখ্যান করেছেন প্রধানমন্ত্রী মোদি। তিনি বলেছেন, বিরোধীরা মিথ্যা ছড়িয়ে দিচ্ছে। আইনটি হওয়ার আগে থেকে ভারতের বিভিন্ন স্থানে প্রতিবাদে বিক্ষোভ হয়ে আসছে। বিক্ষোভের বিষয় নিয়ে আলোচনার জন্য বৈঠক আহ্বান করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।
কিন্তু বৃহস্পতিবার নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করেই উত্তরপ্রদেশ, বেঙ্গালোরে, হায়দ্রাবাদ, চেন্নাই, বিহার, পাটনা, চণ্ডীগড়, মুম্বাই, দিল্লি, কর্নাটক, মহারাষ্ট্র, কলকাতাসহ বিভিন্ন অঞ্চলে লাখ লাখ বিক্ষুব্ধ মানুষ রাজপথে নেমে আসে। এতে যোগ দেয় বিভিন্ন নাগরিক সংগঠন, রাজনৈতিক দল, শিক্ষার্থী, অ্যাকটিভিস্ট ও সাধারণ নাগরিক।

এ অবস্থায় উত্তরপ্রদেশ, কর্নাটক ও দিল্লির বিভিন্ন অংশে ইন্টারনেট ও মোবাইল ডেটা সেবা স্থগিত করেছে প্রশাসন। জারি করা হয়েছে ১৪৪ ধারা।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে ব্যাঙ্গালোরেতে চার পুলিশ সদস্যকে গুলি চালাতে দেখা গেছে। সেখানে শিক্ষার্থীদের একটি দলকে লক্ষ করে গুলি চালানো হয় বলে অভিযোগ। বৃহস্পতিবার হাসপাতালের কর্মকর্তারা আহত দুইজনের মৃত্যুর খবর জানান।

ব্যাঙ্গালোরে পুলিশ কমিশনার ড. পিএস হর্ষ সাংবাদিকদের বলেছেন, ওই শহরে কারফিউ বহাল রয়েছে। নিহত ব্যক্তিদের মৃত্যুর কারণ ঘোষণার আগে তিনি ময়না তদন্তের রিপোর্টের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। ৪৮ ঘন্টার জন্য ব্যাঙ্গালোরে ইন্টারনেট সংযোগ স্থগিত করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৯ ডিসেম্বর) দিনের শুরুর দিকে লাক্ষনৌতে যানবাহনে অগ্নিসংযোগের সময় পুলিশ ও বিক্ষোভকারীদের মধ্যে সহিংস সংঘাত হয়। সেখানে নিহত হয়েছেন একজন। ওই শহরে আহত হয়েছেন এক ডজনের বেশি পুলিশ। সেখানে গ্রেফতার করা হয়েছে ১১২ জনকে।

ওদিকে নাগরিক সমাজের বিভিন্ন গ্রুপ, রাজনৈতিক দলগুলো, ছাত্রছাত্রীরা, অধিকার কর্মী ও সাধারণ নাগরিকরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইন্সটাগ্রাম ও টুইটারে স্ট্যাটাস দিয়ে ভাসিয়ে দিচ্ছেন। এতে জনগণকে ঘর থেকে বেরিয়ে এসে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ করার আহ্বান জানানো হচ্ছে। যাদেরকে গ্রেফতার করা হয় তার মধ্যে উল্লেখযোগ্যরা হলেন প্রথম সারির ইতিহাসবেত্তা ও সরকারের সমালোচক রামচন্দ্র গুহ, রাজননৈতিক কর্মী যোগেন্দ্র যাদব। অল্প সময়ের জন্য রামচন্দ্রকে গ্রেফতার করা হয় ব্যাঙ্গালোরে শহর থেকে। যোগেন্দ্রকে গ্রেফতার করা হয় দিল্লি থেকে।

বিবিসির নিউজআওয়ার প্রোগ্রামে রামচন্দ্র গুহ বলেছেন, বিভিন্ন ব্যাকগ্রাউন্ডের কয়েক শত মানুষের সঙ্গে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। ‘এতে পরিষ্কার হয় যে, ভারতের বিপুল সংখ্যক মানুষ বৈষম্যমুলক এই আইনের বিরোধিতা করছে’।

কেন মানুষ এই আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করছে তার উত্তর খোঁজার চেষ্টা করেছে বিবিসি। তারা বলছে, অনেক মুসলিম নাগরিকদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে যে, এই আইনের অধীনে যদি তারা প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট সংগ্রহ করতে না পারেন তাহলে তারা রাষ্ট্রহীন হয়ে পড়তে পারেন।
সমালোচকরাও বলছেন, এই আইনটি একটি গোষ্ঠীকে বাইরে রাখার জন্য এবং ভারতের সংবিধানের ধর্মনিরপেক্ষ নীতির লঙ্ঘন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী মোদি বলছেন, এই আইনে হিন্দু, মুসলিম, শিখ, জৈন, খ্রিস্টান ও বৌদ্ধ সহ ভারতীয় নাগরিকরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন না। আইনটির বিরোধিতার জন্য তিনি বিরোধী দলগুলোকে দায়ী করেছেন। বলেছেন, তারা মিথ্যা ও গুজব ছড়িয়ে দিচ্ছে। সসহিংসতায় উস্কানি দিচ্ছে। মিথ্যার একটি আবহ সৃষ্টি করছে।

সারাদিন/১৯ডিসেম্বর/টিআর