আশুলিয়ায় চাঁদাবাজির অভিযোগে পুলিশ সদস্যসহ আটক ৪

সাভার প্রতিনিধি:সাভার প্রতিনিধি:
প্রকাশিত: ১০:৪৮ পূর্বাহ্ণ, ২৭/০৭/২০২০

সাভারের আশুলিয়ায় চাঁদাবাজির অভিযোগে এক পুলিশ সদস্যসহ ৪ জনকে আটক করেছে র‌্যাব-৪ এর একটি দল। এসময় তাদের নিকট ও ব্যবহৃত মাইক্রোবাসে তল্লাশি চালিয়ে দেশীয় অস্ত্র ও মাদক দ্রব্য উদ্ধার করা হয়। এছাড়াও তাদের ব্যবহৃত মাইক্রোবাসটি জব্দ করা হয়।

রোববার (২৬ জুলাই) রাত ৯ টার দিকে আশুলিয়ার জামগড়া এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়।

আটকৃতরা হলো- মানিকগঞ্জ জেলার দৌলতপুর থানার শ্যামপুর গ্রামের মৃত তসলিম উদ্দিনের ছেলে মো. মমিনুর রহমান (৩৫)। তিনি বর্তমানে আশুলিয়া থানায় পুলিশ কনস্টেবল হিসেবে কর্মরত। নীলফামারী জেলার ডিমলা থানার বন্দর খড়িবাড়ী গ্রামের মো. আবদুল লতিফের ছেলে আবদুল হামিদ (৩২) (মাইক্রোবাস চালক)। গাইবান্ধা জেলার সদর থানার চৌদ্দগাছা গ্রামের মৃত তোফাজ্জল মিয়ার ছেলে ওয়াহেদ (৪০) ও অপরজন জামালপুর জেলার মেলান্দহ থানার চরগুহিন্দি গ্রামের মো. সরুজ শেখের ছেলে ওয়াজেদ শেখ (২৩)।

নুর উদ্দিন পাটোয়ারী নামের এক ভুক্তোভোগী জানান, আশুলিয়ার জামগড়া এলাকায় নুর মেডিকেল হল নামে আমার একটি ওষুধের দোকান আছে। গত বুধবার (২২ জুলাই) রাতে আমার ওষুধের দোকানে বিক্রয় নিষিদ্ধ ওষুধ রয়েছে দাবী করে। পরে তারা আমাকে ভয়-ভীতি দেখিয়ে টাকা আদায় করে। পরে রোববার রাতে (২৬ জুলাই) দাবীর করা বাকী টাকা নিতে আসার কথা জানায় তারা। ফলে আশুলিয়ার নবীনগর র‌্যাব-৪ এর সিপিসি-২ কে বিষয়টি অবহিত করি। পরে র‌্যাব ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তাদের অপেক্ষায় করতে থাকে। তারা আসলে র‌্যাব তাদেরকে হাতে নাতে আটক করে।

এ বিষয়ে র‌্যাব ৪ এর সিপিসি-২ কমান্ডার ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জমির উদ্দিন জানান, ভয়-ভীতি দেখিয়ে টাকা দাবির খবর পেয়ে আগে থেকেই অবস্থান নিয়ে তাদেরকে হাতে নাতে আটক করি। এরমধ্যে আশুলিয়ার থানার একজন পুলিশ সদস্য রয়েছে। এ সময় তাদের নিকট ও ব্যবহৃত মাইক্রোবাসে তল্লাশী চালিয়ে বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র, জাল টাকা, ইয়াবা ও গাঁজাসহ বিভিন্ন মানুষের জাতীয় পরিচয়পত্র ও ব্যাংকের ১৬ এটিএম কার্ড পাওয়া যায়।

আটকদের বিরুদ্ধে আশুলিয়া থানায় চাঁদাবাজি, অস্ত্র, মাদক ও ডাকাতির প্রস্তুুতি বিষয়ে মোট ৪ টি মামলা দায়ের করা হবে। দুইটি মামলা ভুক্তভোগী নুর উদ্দিন বাদী হবেন ও বাকী দুইটি র‌্যাব -৪ বাদী হবে বরেও জানান তিনি।