দেশে আন্তর্জাতিক অনলাইন গেমিং প্রতিযোগিতা

সারাদিন ডেস্কসারাদিন ডেস্ক
প্রকাশিত: ৬:৩০ অপরাহ্ণ, ১২/১১/২০১৯


দেশের শীর্ষস্থানীয় ডিজিটাল কোম্পানি রবি আজিয়াটা দুই ব্র্যান্ড রবি ও এয়ারটেলের আয়োজনে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হলো আন্তর্জাতিক অনলাইন গেমিং প্রতিযোগিতা ‘আজিয়াটা গেম হিরো’। এ প্রতিযোগিতার বাংলাদেশ অংশের চূড়ান্ত পর্ব রবিবার সন্ধ্যায় (নভেম্বর ১১, ২০১৯) রাজধানীর অভিজাত লা মেরিডিয়েন হোটেলে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

প্রতি দলে চারজন করে ১২টি দলের মোট ৪৮জন প্রতিযোগী বাংলাদেশ পর্বের চূড়ান্ত পর্বে অংশগ্রহণ করেন। অংশগ্রহণকারী ছয়টি দল প্রায় ছয় লাখ টাকার পুরস্কার জিতেছেন। আগামী ২১ ও ২২ ডিসেম্বর মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরে অনুষ্ঠিতব্য আজিয়াটা আয়োজিত আন্তর্জাতিক পর্যায়ের গ্র্যান্ড ফিনালে প্রতিযোগিতায় অংশ নেবে বাংলাদেশের বিজয়ী তিনটি দল।

প্রতিযোগিতার চ্যাম্পিয়ন টিম পেয়েছে ১ লাখ ৮৫ টাকা মূল্যের পুরস্কার। দ্বিতীয় এবং তৃতীয় স্থান অর্জনকারী দল যথাক্রমে পেয়েছে ১ লাখ ১৫ হাজার টাকা ও ৮৫ হাজার টাকা মূল্যের পুরস্কার।
অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করেন রবির ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও মাহতাব উদ্দিন আহমেদ। এ সময় রবির চিফ কমার্শিয়াল অফিসার প্রদীপ শ্রীবাস্তবসহ রবি এবং এর মূল কোম্পানি আজিয়াটার উচ্চপদস্ত কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশের মোট দুই লাখ গেমার এ প্রতিযোগিতায় নিবন্ধন করেছিলেন। আয়োজনের প্রথম পর্বে তীব্র প্রতিদ্ব›দ্বীতাপূর্ণ প্রতিযোগিতার মাধ্যমে নির্বাচিত ৪৮জনকে নিয়ে গ্র্যান্ড ফিনালের জন্য ১২টি দল গঠন করা হয়। জনপ্রিয় গেম ‘ফ্রি ফায়ার’ নিয়ে আয়োজন করা হয় এই ‘গেম হিরো’ প্রতিযোগিতাটি।

বাংলাদেশ থেকে শীর্ষ তিন দল ছাড়াও ক্যাম্বোডিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও মালয়েশিয়ার প্রতিযোগিতাও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের এ প্রতিযোগিতায় অংশ নেবেন। এর আগে বাংলাদেশের রবি আজিয়াটা লিমিটেডের মতো ওই দেশগুলিতেও আজিয়াটা পরিচালিত অন্যান্য কোম্পানিগুলো নিজ নিজ দেশে জাতীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিতার আয়োজন করে।

অনুষ্ঠানে রবির ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও মাহতাব উদ্দিন আহমেদ বলেন, “এই গেমিং প্রতিযোগিতায় দেশের তরুণদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ দেখে আমি অভিভূত। আমার বিশ^াস আন্তর্জাতিক মানের এই গেমিং প্রতিযোগিতার মাধ্যমে বাংলাদেশ বিশ্বের চলমান ধারার সাথে একাত্ম হতে পেরেছে। দেশের শীর্ষস্থানীয় ডিজিটাল কোম্পানি রবি এর মূল কোম্পানি আজিয়াটা গ্রæপ বারহাদের সহযোগিতায় এই মাইলফলক অর্জন করায় আমরা গর্বিত।”

গেমিংয়ের ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তা সম্পর্কে তিনি বলেন, “একসময় সময়ের অপচয় বলে মনে হলেও এখন শিশু ও প্রাপ্তবয়স্ক উভয়ের জন্য মানসিক বিকাশ, হাত ও চোখের সমন্বিত কার্যক্রমের বিকাশ, দ্রæত সিদ্ধান্ত দিতে মস্তিস্ককে উদ্দীপ্ত করতে গেমিংকে একটি কার্যকর মাধ্যম বলে বিবেচনা করা হয়। মাত্রারিক্ত যে কোন কিছুরই নেতিবাচক দিক থাকে; তবে এখন বিশ^জুড়েই গেমিংয়ের ইতিবাচক দিকগুলো নিয়ে আলোচনা হচ্ছে।”