বিজয় দিবসের বিশেষ টেলিফিল্ম ‘সেই আমি’

বিনোদন প্রতিবেদকবিনোদন প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:৪৫ অপরাহ্ণ, ১২/১২/২০১৯

মুক্তিযুদ্ধে বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর এর অবদানের কথা স্মরণ করে তার জীবনী নিয়ে এই প্রথম বিজয় দিবসের জন্য নির্মাণ করা হয়েছে টেলিফিল্ম “সেই আমি”। এটির গল্প ও চিত্রনাট্য লিখেছেন ড. মইনুল খান ও পরিচালানা করেছেন দীপু হাজরা। অভিনয় করেছেন আরমান পারভেজ মুরাদ, নাজনীন হাসান চুমকী. রুনা খান, সমাপতি মাসুক, সায়েম সামাদ, আজম খান, অরিত্রা সহ আরও অনেকে। টেলিফিল্মটি চ্যানেল আই এর বিজয় দিবয়ের বিশেষ অনুষ্ঠান মালায় ১৩ই ডিসেম্বর শুক্রবার দুপুর ২টা ৪৫ মিনিটে প্রচারিত হবে।

গল্পের ধারাবাহিকতায় টেলিফিল্মটিতে দেখা যায় মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর পাকিস্তান আর্মি থেকে পালিয়ে আসলে তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তানী মিলিটারী তাকে খুজতে তার গ্রামের বাড়ী যায়। সেখানে খুজে না পেয়ে এক রাজাকারের সহযোগীতায় উপস্থিত হয় তার নানা-নানীর বাড়িতে। তাদের ধারনা এ বাড়িতেই জাহাঙ্গীরকে পাওয়া যাবে। বিষয়টি তেমন হয়নি কারন ইতোমধ্যে জাহাঙ্গীর মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করে চাঁপাইনাবাবগঞ্জে যুদ্ধে লিপ্ত হন। মিলিটারীরা তাকে না পেয়ে তার নানা-নানীকে ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ করে পুরো ঘরে আগুন লাগিয়ে দেয়। সেখানেই তাদের মৃত্যু হয়। পাশের বাড়ির আত্মীয় কালুমীর ও বেগম বিবি বিষয়টি জানার পর তাদের বাঁচাতে এগিয়ে আসলে মিলিটারীরা কালুমীরের বড় মেয়ে ছিনুর সামনেই বেগম বিবিকে গুলি করে হত্যা করে। ছিনুর বয়স তখন ৭ বছর, তার মনে বেশ দাগ কাটে। চোখের সামনে তার মায়ের এই মৃত্যুকে কোন ভাবেই মেনে নিতে পারেনা। ছিনুর বয়স এখন ৫৮ বছর। বিয়ে করে ঢাকাতেই থাকে। ডিসেম্বর এলেই সেই দূর্বিসহ স্মৃতি গুলো তাকে নাড়া দেয়। কিছুতেই ঘুমাতে পারেনা সে।

এত অসংঙ্গতির মধ্য একটু শান্তির বারতা পেল ছিনু। যখন দেখলো এতশত শীতার্ত মানুষের মাঝে কোন এক বৃদ্ধ নিজের ভালোলাগা থেকেই কম্বল বিতরন করছেন। ছিনু বেশ আস্বস্ত হন। কতশত অনিয়মের মাঝে একটুকু আশার আলো, যে আলোর ফুলকিতে এখনো হাটছে আজকের বাংলাদেশ।

সারাদিন/১২ ডিসেম্বর/টিআর