মানিকগঞ্জে ইউএনওর হস্তক্ষেপে বাল্যবিবাহ বন্ধ

মানিকগঞ্জ সংবাদদাতামানিকগঞ্জ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ৫:০৭ অপরাহ্ণ, ১১/১২/২০১৯

মানিকগঞ্জের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) হস্তক্ষেপে আদুরী রাজবংশী (১৩) বাল্য বিবাহের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছেন। আদুরী রাজবংশী সদর উপজেলার নবগ্রাম ইউনিয়নের মাঝিপাড়া গ্রামের রূহীদাসের মেয়ে ও নবগ্রাম হাইস্কুলের সপ্তম শ্রেনীর ছাত্রী।

বুধবার (১১ ডিসেম্বর) দুপুরে সদর উপজেলা নির্বার্হী কর্মকর্তা আসমাউল হুসনা লিজা মাঝিপাড়া গ্রামে মেয়ের বাড়ীতে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে এ বিয়ে বন্ধ করে দেন। সেই সঙ্গে আদুরীর বাবা রূহীদাস রাজবংশী এবং মা নয়নী রাজবংশী ১৮ বছর আগে বিয়ে দেবে না, এই মর্মে লিখিত মুচলেকাও নিয়েছেন।

আদুরীর পরিবারের আর্থিক অনটন থাকায় তার স্কুলের লেখাপড়া প্রয়োজনীয় খরচের দায়িত্ব নিয়েছেন নবগ্রাম হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক আনোয়ার পারভেজ। এছাড়া আসমাউল হুসনা লিজা আদুরীর উচ্চ মাধ্যমিক পর্যন্ত লেখাপড়ার দায়িত্ব নেন।

পরে তিনি পরিবারের সদস্যদের সাথে বাল্যবিবাহের কুফলগুলো সম্পর্কে অবহিত করেন। এ সময় মেয়েদের পূর্ণ বয়স হওয়ার আগে বিয়ে না দিতে গ্রামবাসীকে সতর্ক করেন।

এ বিষয়ে আসমাউল হুসনা লিজা বলেন, স্থানীয় গ্রামবাসীদের বলেন, মেয়েটির পরিবার অত্যন্ত দরিদ্র। অর্থাভাবে মেয়েটির পড়ালেখা বন্ধ। তাই উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমি কিশোরীর পড়ালেখার দায়িত্ব গ্রহণ করেছি।

তিনি বলেন, এই মেয়ের বাবা ও মা ১৮ বছর আগে বিয়ে দেবে না বলেও জানিয়েছে। অপ্রাপ্ত বয়সে বিয়ে নারীরা স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে ভোগে আর এদের মৃত্যু ঝুঁকিও বেড়ে যায়। তাই আমাদের সবাইকে সচেতন হতে হবে।
সারাদিন/১১ডিসেম্বর/আর