বানারীপাড়ায় আলোচিত ট্রিপল মার্ডারের নেপথ্যে মিশুর পরকীয়া প্রেম

অবশেষে বরিশালের বানারীপাড়ায় আলোচিত ট্রিপল মার্ডারের প্রকৃত রহস্য বের হয়েছে। পরকীয়া প্রেমের জের ধরেই এই ট্রিপল মার্ডারের ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি করেছেন পুলিশ।

ফলে হত্যাকান্ডের নেপথ্যে থাকা কুয়েত প্রবাসীর স্ত্রী মিশরাত জাহান মিশুকে হত্যা মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে।

অপরদিকে হত্যাকান্ডের ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া প্রধান দুই ঘাতক জাকির ও জুয়েল আদালতের কাছে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। রোববার (৮ ডিসেম্বর) রাতে বরিশাল সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক এনায়েত উল্লাহ তাদের জবানবন্দি রেকর্ড শেষে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বানারীপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শিশির কুমার পাল জানান, গ্রেফতারকৃত দুই ঘাতকের মধ্যে রাজমিস্ত্রি জাকির হোসেনের সঙ্গে পূর্বে থেকেই কুয়েত প্রবাসী হাফেজ আব্দুর রবের স্ত্রী মিশরাত জাহান মিশুর পরকিয়ার সম্পর্ক ছিলো। প্রবাসীর বাড়িতে বিল্ডিং নির্মাণ কাজ করতে গিয়ে তাদের মধ্যে এ পরকিয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

প্রসঙ্গত, পরকিয়ার সেই সম্পর্ক ধরেই পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী শুক্রবার দিবাগত রাতে সহযোগী জুয়েলকে নিয়ে প্রবাসীর ঘরে প্রবেশ করেছিলো জাকির। তারা দু্নেই মিলেই প্রবাসীর স্ত্রী ও ভগ্নিপতিসহ তিন জনকে হত্যা করে। প্রথমে তারা প্রবাসীর খালাতো ভাই ভ্যানচালক ইউসুফকে (২২) শ্বাস রোধ করে হত্যা করে।

পরে প্রবাসীর মা মরিয়ম বেগমকে(৭৫) একইভাবে শ্বাস রোধ করে হত্যা করার সময় পাশের কক্ষে ঘুমানো শফিকুল আলম ঘুমেরের মধ্যে কাশি দিলে ঘাতকরা মনে করে সে বিষয়টি টের পেয়েছে। ফলে ধরা পড়ার ভয়ে তাকেও শ্বাস রোধ করে হত্যা করা হয়।

সারাদিন/৯ডিসেম্বর/টিআর