ঢাবির সমাবর্তনে উচ্ছ্বসিত গ্রাজুয়েটরা

ঢাবি সংবাদদাতাঢাবি সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ১১:০৫ পূর্বাহ্ণ, ০৯/১২/২০১৯

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ৫২তম সমাবর্তন সোমবার (৯ ডিসেম্বর)। আর সকাল থেকে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। সমাবর্তন পাওয়া গ্রাজুয়েটদের উচ্ছ্বাসে উচ্ছ্বসিত এখন এই ক্যাম্পাস।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এবারের সমাবর্তনে ২০ হাজার ৭৯৬ জন গ্রাজুয়েট অংশগ্রহণ করছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন ঢাবির চ্যান্সেলর ও রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

সমাবর্তন বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকবেন জাপানের টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট ফর কসমিক রে রিসার্চের পরিচালক নোবেল বিজয়ী অধ্যাপক ড. তাকাকি কাজিতা। অনুষ্ঠানে ৯৮ জন কৃতী শিক্ষার্থী রাষ্ট্রপতির কাছ থেকে স্বর্ণপদক গ্রহণ করবেন। সেই সাথে ৫৭ জনকে পিএইচডি এবং ১৪ জনকে এমফিল ডিগ্রি দেয়া হবে। ঢাবি অধিভুক্ত সাত কলেজের নিবন্ধিত স্নাতকরা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ঢাকা কলেজ ও ইডেন মহিলা কলেজ থেকে সরাসরি সমাবর্তন অনুষ্ঠানে অংশ নিবেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সমাবর্তনের কস্টিউম (গাউন-টুপি) বিতরণ করেন। এরপরই মূলত শুরু হয় সমাবর্তনের আমেজ। গাউন ও টুপি নিয়ে সমাবর্তনে অংশগ্রহণকারীরা ক্যাম্পাসে মহড়া দিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন।

গাউন আর টুপি পরে তারা দল বেঁধে ছবি তুলছেন, কেউবা হৈ চৈ করছেন, কেউবা নিত্য নতুন স্টাইলে ছবি তোলে ভাইরাল হওয়ার চেষ্টা করছেন। অনেকে আবার নিজের মা-বাবাকে সমাবর্তন উপলক্ষে ক্যাম্পাসে নিয়ে এসেছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও সিনিয়রদের এ আমেজে মেতেছেন।

সমাবর্তনে অংশ নেওয়া আইন বিভাগের শিক্ষার্থী আনসারী বলেন, প্রথমবারের মতো কনভোকেশনে অংশ নিচ্ছি। বিশ্ববিদ্যালয় ঘুরে ঘুরে বন্ধুদের নিয়ে ছবি তুলছি; যাতে এসময়টা স্মৃতিময় হয়ে থাকে।

ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ বলেন, সমাবর্তন সব শিক্ষার্থীদের জন্য একটি অসাধারণ মুহূর্ত। আমিও আমার স্বপ্নের দিনটি উদযাপন করতে মা-বাবাকে নিয়ে এসেছি। মা-বাবাও আমার গ্রাজুয়েট হওয়ার আনন্দ উপভোগ করছেন।

সমাবর্তনের প্রস্তুতি সম্পর্কে ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান শনিবার (৭ ডিসেম্বর) ক্যাম্পাসে এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, উৎসবমুখর পরিবেশে সমাবর্তন আয়োজনের জন্য সব প্রস্তুতি ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে।

সারাদিন/৯ডিসেম্বর/টিআর