বাংলাদেশি চলচ্চিত্র ও নাটকের ভূয়সী প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদকনিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৮:৩৩ অপরাহ্ণ, ০৮/১২/২০১৯

কর্মব্যস্ততার কারণে তেমন সময় না পেলেও বিদেশ সফরের যাত্রাপথে বিমানে বসে থাকার সময়ে খুঁজে খুঁজে বাংলা চলচ্চিত্র দেখেন বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। আর বাসায় একটু অবসর পেলে কোনো কোনো নাটকের অংশবিশেষ দেখেন বলে জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রোববার (৮ ডিসেম্বর) বিকেলে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৭ ও ২০১৮ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

এ সময় তিনি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে গিয়ে বাংলাদেশি চলচ্চিত্র ও নাটকের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

তিনি বলেন, “আমি নিজে খুব বেশি সিনেমা দেখার সুযোগ না পেলেও যখন আমি বিদেশে যাই আমি কিন্তু আমাদের বিমানে উঠলে আমি বিমানে বসে সিনেমা দেখি। আমাদের বাংলা বইগুলো খুঁজে খুঁজে আমি দেখি। এবং আমার এত ভালো লাগে এবং এত চমৎকার চমৎকার সিনেমাগুলো করা হয়! সত্যি প্রত্যেকটা বই যখনই যেটা দেখি আমার চমৎকার, খুব ভালো লাগে। খুব চমৎকার লাগে।

‘সেজন্য সবাইকে আমি আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। আমাদের যে মেধা আছে সেটা যেন আরও সুন্দর সুন্দর চলচ্চিত্র নির্মাণ হোক। সেটাই আমি চাই।’

নাটক নিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আসলে এমনি তো সময় পাই না। ফাইল দেখতে দেখতে আর ওই নথি পড়তে পড়তেই দিন কেটে যায়। সেটাই হচ্ছে সমস্যা। তবে মাঝে মাঝে টেলিভিশনে একটু একটু করে নাটক, হয়ত সব দেখতে পাই না। কিছু কিছু দেখি।

‘কিন্তু আমি সত্যি কথা বলতে পারি। আমি কাউকে বদনাম করতে চাই না। অন্য জায়গায় যেমন শুধু ওই শাড়ি আর গহনার কম্পিটিশন আর খুনসুটিপনা দেখি, আমাদের প্রত্যেকটা নাটকের ভেতরে এত বেশি জীবনধর্মী স্পর্শ রয়েছে, যার থেকে অনেক কিছু জানা যায়, শেখা যায়, অনেক কিছু বোঝা যায়।

“কাজেই আমি সেদিক থেকে বলব, আমাদেরগুলো সব থেকে শ্রেষ্ঠ।” বাংলাদেশের অভিনয় শিল্পীদেরও প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ, তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি হাসানুল হক ইনু, তথ্য প্রতিমন্ত্রী মো. মুরাদ হাসানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সারাদিন/৮ডিসেম্বর/