‘মহামারির মতো আমাদের করোনার বিরুদ্ধে লড়তে হবে’

বিশেষ প্রতিবেদকবিশেষ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৩:৪৬ অপরাহ্ণ, ১৫/০৩/২০২০

করোনা নিয়ে আতংকিত হয়ে থাকার সুযোগ যেমন নেই তেমনি একদম নিশ্চিন্ত নির্ভার থাকার ও সুযোগ নেই। সবাই মিলে সম্মিলিত সচেতনতা এবং প্রচেষ্টা র মাধ্যমে অতীতের সকল দুর্যোগ – মহামারি মতো আমাদের করোনার বিরুদ্ধে লড়তে হবে জানিয়েছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজের মেডিসিন ও সংক্রামক বিশেষজ্ঞ, মেডিসিন বিভাগের রেজিস্টার ডা. ফরহাদ উদ্দিন হাসান চৌধুরী।  তিনি বলেন, ইতিমধ্যে সারা বিশ্বের চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা-এর প্রতিষেধক এবং নির্মূলকারী চিকিৎসা পদ্ধতি নিয়ে দিন রাত কাজ করে চলেছে। যে কোনও দিন ভালো খবর শোনার আশা আমরা করতেই পারি।

তিনি সারাদিন ডট নিউজের সাথে আলাপচারিতায় এসব কথা বলেন। এ সময় করোনাভাইরাস সম্পর্কে বিভিন্ন বিষয় জানান তিনি।

এদিকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। কোনও ভাবেই যেন থামছে না মৃত্যুর মিছিল। বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ৫ হাজার ৮৩৯ জনে দাঁড়িয়েছে। ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ১ লাখ ৫৭ হাজার ১১২ জন। বিশ্বের ১৫৩টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে এই ভাইরাস। প্রতিদিনই এই ভাইরাসে নতুন নতুন দেশ আক্রান্ত হচ্ছে।

সারাদিন ডট নিউজ: করোনাভাইরাস বিশ্বের জন্য কতটা ঝুঁকিপূর্ণ?

ডা. ফরহাদ উদ্দিন হাসান: চীনের উহান প্রদেশে শুরু হয়ে ধীরে ধীরে ছড়িয়ে পড়া আতংকের নাম করোনা ভাইরাস। সংগত কারণেই এই রোগ থেকে সচেতন দৃষ্টি সরিয়ে নেবার সুযোগ নেই। এ ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধ না করতে পারলে এবং অবাধ বিস্তার থামাতে না পারলে নিঃসন্দেহে এই ভাইরাস সারা বিশ্বের জন্য ঝুঁকি হয়ে দেখা দিতে পারে।

সারাদিন ডট নিউজ: বাংলাদেশে এই ভাইরাস মোকাবেলায় কি ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে?

ডা. ফরহাদ উদ্দিন হাসান: দেশেও ছড়িয়ে পড়েছে। তবে খুব বেশি না। সচেতন প্রতিটি দেশের সাথে তাল মিলিয়ে আমাদের দেশেও বিস্তৃত পরিসরে রোগ নির্ণায়ক স্ক্রিনিং কর্মসূচি নেয়া হয়েছে। আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, জলবন্দর এবং স্থলবন্দর গুলোতে মেডিকেল টিম সদা প্রস্তুত আছে ; কাজও করছে। যাতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহ হলে দ্রুত চিহ্নিত করে যথাযথ চিকিৎসা এবং বিস্তার রোধ করা যায়। মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল গুলোয় করোনা ভাইরাস সংক্রমণের সন্দেহ হলে তাদের আলাদা ভাবে পরিপূর্ণ সেবা দেয়ার জন্য বিশেষ ইউনিট খোলা হয়েছে এবং ক্রমান্বয়ে সারা দেশে এই উদ্যোগ শক্তিশালী করার পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে।

সারাদিন ডট নিউজ: এই রোগ থেকে মুক্তির উপায় কি হতে পারে?

ডা. ফরহাদ উদ্দিন হাসান: আমাদের এখন ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক এবং জাতীয় – সকল পর্যায়ে সচেতন থাকতে হবে৷ সুস্থ এবং স্বাস্থ্যকর জীবন যাপনের চর্চার মাধ্যমে এই ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধ সম্ভব। তবে খেয়াল রাখতে হবে সামাজিক গণমাধ্যমগুলোর মাধ্যমে করোনা নিয়ে কোন অহেতুক গুজব যেন না ছড়াতে পারে। সব সময় হাত পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। হাচিঁ কাশি সাবধানতার সাথে দিতে হবে।

সারাদিন ডট নিউজ: করোনা থেকে দূরে থাকতে আপনার পরামর্শ কি?

ডা. ফরহাদ উদ্দিন হাসান: এই মুহূর্তে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত দেশ গুলোতে ভ্রমণের ব্যাপারে বাড়তি সচেতনতা অবশ্যই বিবেচনা করতে হবে। জনসমাগম স্থানে যথাসম্ভব কম যাবার চেষ্টা করতে হবে। যত্র তত্র থুতু কফ না ফেলা। হাঁচি কাশির সময় রুমাল ব্যাবহার করা। হাঁচি কাশি সর্দিতে আক্রান্ত কারো সংস্পর্শে আসার পর, কোলাহল যুক্ত এলাকা বা স্থান থেকে আসার পর বা হাসপাতাল – রোগীর সংস্পর্শ থেকে ফেরার পর ভালো করে সাবান এবং হ্যান্ডওয়াশ দিয়ে হাত ধুয়ে ফেলতে হবে৷ এছাড়া জনবহুল স্থানে চলাফেরার সময় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা অনুমোদিত এবং মান সম্পন্ন মাস্ক ব্যবহার করা উচিত।

সারাদিন ডট নিউজ: করণীয় নিয়ে বিস্তারিত বলুন

ডা. ফরহাদ উদ্দিন হাসান: করোনা নিয়ে আতংকিত হয়ে থাকার সুযোগ যেমন নেই তেমনি একদম নিশ্চিন্ত নির্ভার থাকার ও সুযোগ নেই। সবাই মিলে সম্মিলিত সচেতনতা এবং প্রচেষ্টা র মাধ্যমে অতীতের সকল দুর্যোগ – মহামারি মতো আমাদের করোনার বিরুদ্ধে লড়তে হবে। ইতিমধ্যে সারা বিশ্বের চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা এর প্রতিষেধক এবং নির্মূলকারী চিকিৎসা পদ্ধতি নিয়ে দিন রাত কাজ করে চলেছে। যে কোন দিন ভালো খবর শোনার আশা আমরা করতেই পারি।

সারাদিন/৫মার্চ/এএইচ/আরটিএস