‘আদালতে আইনজীবীদের এতো উপস্থিতি নজির বিহীন ও বাড়াবাড়ি’

নিজস্ব প্রতিবেদকনিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২:৩৪ অপরাহ্ণ, ০৫/১২/২০১৯

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার শুনানিকে কেন্দ্র করে হট্টগোল হওয়ার ঘটনা ঘটে। এই সময় প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেছেন, আদালতে আইনজীবীদের এতো উপস্থিতি নজির বিহীন। বৃহস্পতিবার (৫ ডিসেম্বর) এই সময় ঘটনাকে তিনি বাড়াবাড়ি বলেও উল্লেখ করেন।

প্রধান বিচারপতি আইনজীবীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা আমাদের শক্তি দেখান? তখন বিএনপি’র আইনজীবীরা বলেন, ‘মাইলর্ড আমরা তো আপনার কাছেই আসব’।

এ দিন সকালে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের শুনানি নিয়ে নজিরবিহীন হট্টগোল হয় দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে। দুইপক্ষের হট্টগোলের মধ্যে সাত মিনিট চুপচাপ বসে ছিলেন প্রধান বিচারপতিসহ আপিল বিভাগের ছয় বিচারপতি।

পরে সকাল সাড়ে ১১টায় আবারো আদালতের এজলাসে ওঠেন তিনি। তখনও বিএনপি’র আইনজীবীরা উচ্চস্বরে শ্লোগান দিতে থাকেন অন্য কোনো মামলার শুনানি না করতে।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা আগামী ১২ ডিসেম্বর শুনানির জন্য পরবর্তী তারিখ দিলেও তা কোনোভাবেই শোনেননি বিএনপি’র আইনজীবীরা। এ সময় তারা বারবারই বলতে থাকেন আজ (৫ ডিসেম্বর) অথবা আগামী রোববার বা সোমবারের মধ্যে এই মামলার শুনানি করতে হবে।

এই অবস্থার মধ্যেই আইনজীবী আজমালুল হোসেন কিউসি তালিকার ৯ নম্বরে থাকা একটি মামলার শুনানি শুরু করেন। এ সময় আদালতের দুদিকে বিএনপি ও রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা অবস্থান নেন। একইসঙ্গে বিএনপি’র আইনজীবীরা ৯ নম্বর মামলার শুনানি বাধাগ্রস্ত করতে বারবার শ্লোগান দিতে থাকেন। বারবার এমন শ্লোগানে থমকে যায় বিচারকাজ।

বৃহস্পতিবার মামলা তালিকায় ১৫৫টি মামলা শুনানির জন্য ছিল। এর মধ্যে এক থেকে ছয় নম্বর পর্যন্ত শুনানি হলেও খালেদা জিয়ার জামিন শুনানিতে আটকে যায় বাকি কার্যক্রম। খালেদা জিয়ার আইটেম ছিল সাত নম্বর। এই মামলার শুনানির সময় থেকে দুপুর সোয়া একটা পর্যন্ত আর কোনো মামলার শুনানি হয়নি। দুপুর সোয়া একটায় এজলাস থেকে বেরিয়ে যান প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন।

সারাদিন/৫ডিসেম্বর/আরটি