ঋণের ২ শতাংশ সুবিধা নন-ব্যাকিং গ্রাহকদের কেন দেয়া হবে না?

নিজস্ব প্রতিনিধিনিজস্ব প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ৬:৪২ অপরাহ্ণ, ০২/১২/২০১৯

মোট ঋণের ২ শতাংশ জমা দিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে জারি করা ঋণের পুনঃতফসিলের সুবিধা নন-ব্যাকিং আর্থিকপ্রতিষ্ঠানের গ্রাহকদের কেন দেয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। আর আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বাজার বিভাগের মহাব্যবস্থাপক ও নীতিমালা বিভাগের মহাব্যবস্থাপক, ফনিক্স ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ পাঁচজনকে এ রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

সোমবার (২ ডিসেম্বর) হাইকোর্টের বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে একটি রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে এ রুল জারি করেন। আদালতে সোমবারই রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী পলাশ চন্দ্র রায়। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল নুর-উস সাদিক।

ফনিক্স ফাইন্যান্সের ঋণগ্রহীতা মো. ইউনুস পাটওয়ারী রিট আবেদনটি দায়ের করেন। এর আগে তিনি ফনিক্স ফাইন্যন্স ও বাংলাদেশ ব্যাংকে ২ শতাংশ ঋণ সুবিধা পেতে আবেদন করেন।

তাকে জানানো হয়, এ ঋণ সুবিধা শুধুমাত্র ব্যাংকের ঋণগ্রহীতাদের জন্য প্রযোজ্য। চলতি বছরের ১৬ মে ব্যাংকের ঋণখেলাপিদের ২ শতাংশ ডাউনপেমেন্টের বিজ্ঞপ্তি জারি করে বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতিমালা বিভাগ (বিআরপিডি)।

অন্যদিকে নন-ব্যাংকিং আর্থিকপ্রতিষ্ঠানগুলো নিয়ন্ত্রিত হয় আর্থিকপ্রতিষ্ঠান ও বাজার বিভাগের অধীন (ডিএফআইএম)। ফলে বিআরপিডির বিজ্ঞপ্তির সুবিধা ডিএফআইএম’র জন্য কার্যকর নয়।

গত ১২ সেপ্টেম্বর ইউনুস পাটওয়ারীর পক্ষে আইনি নোটিশ দেয়া হয় বাংলাদেশ ব্যাংককে। নোটিশের কোনো জবাব না পেয়ে তার পক্ষে রিট দাখিল করেন আইনজীবী রাজু হাওলাদার পলাশ। ওই রিটের ওপর এদিন রুল জারি করা হলো।

গত ১৬ মে বাংলাদেশ ব্যাংক ঋণ পুনঃতফসিল সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি জারি করে। এতে ২ শতাংশ ডাউনপেমেন্টে ৯ শতাংশ সরল সুদে ১০ বছরের ঋণ পরিশোধের সুযোগ দেয়া হয় ঋণখেলাপিদের।

সারাদিন/২ডিসেম্বর/টিআর