শহীদ মিনারের চারপাশে প্রতিবাদের ভাষা, প্রস্তুত জাতি

নিজস্ব প্রতিবেদকনিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৬:৪১ অপরাহ্ণ, ২০/০২/২০২০

প্রতিবছরের মতো এবারও কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ, শহীদ মিনারের সামনের সড়ক ও দেয়ালে আঁকা হচ্ছে বর্ণিল দেয়ালচিত্র। আর মাত্র কয়েক ঘন্টা বাকি। এর মধ্যেই প্রস্তুত করা হয়েছে শহীদ মিনার। আসলে যাদের অকাতরে বিলিয়ে দেয়া প্রাণের বিনিময়ে বাঙালি পেয়েছে ভাষার অধিকার। তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে অপেক্ষায় প্রহর গুনছে পুরো জাতি।

এখন চলছে শেষ মুহূর্তের কাজ। আলপনা আঁকছেন চারুকলা ইনস্টিটিউটের এক শিক্ষার্থী। নিরবচ্ছিন্ন কর্মযজ্ঞে প্রস্তুত করা হয়েছে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার বেদীকে। রং তুলি আঁচড়ে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে মায়ের ভাষাকে। নিরাপত্তায় মুড়িয়ে দেয়া হয়েছে পুরো শহীদ মিনার এলাকা।

কয়েক ঘণ্টা পরেই ফুলে ফুলে ভরে উঠবে শহীদ মিনার। স্মরণ করা হবে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের শিক্ষার্থীরাই এর সাজসজ্জা করে থাকেন।

দেয়াল দেয়ালে চিত্রে প্রতিবাদের ভাষা, আর নানা স্লোগান, উক্তি ও প্রতিরোধের আগুন তুলির আঁচড়ে ফুটে তোলা হচ্ছে কয়েক গুণ। আলপনার রঙে সজ্জিত মিনার বেদী। তোরণে বেষ্টিতে আশেপাশের রাস্তাজুড়ে আলোকবাতির সমাহার।

সুব্রত আচার্য সারাদিন ডট নিউজকে বলেন, যাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা মাতৃভাষা পেয়েছি তাদের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা অবিরত। আর সেসব শহীদদের স্মৃতিগাঁথা দেয়ালে তুলিতে আঁকা হচ্ছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চিত্রকলার শিক্ষার্থী আসমা সারাদিন ডট নিউজকে বলেন, আলপনা ও শহীদ মিনার সাজাতে যে কাজ করা হচ্ছে, তার প্রতি প্রত্যেকটি মানুষের ভালোবাসা প্রকাশ হচ্ছে।

শেষ মুহূর্তে তৎপর পরিচ্ছনতা কর্মীরাও। কেউ ঝাড়া মোছায় ব্যস্ত। আবার কেউবা করছেন তদারকি। শ্রদ্ধা নিবেদন নির্বিঘ্ন করতে শহীদ মিনার চত্বরে ৩ ধাপে নিরাপত্তা তল্লাশিসহ সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে র‌্যাব।

এ প্রসঙ্গে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেরিয়ান (র‌্যাব) মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ গণমাধ্যমকে বলেন, তিন ধাপে নিরাপত্তা ব্যবস্থা আমরা এখানে প্রতিপালিত করব। এজন্য পুরো এলাকাকে পাঁচটি সেক্টরে বিভক্ত করে এখানে পর্যাপ্ত অবজারবেশন পোস্ট স্থাপন করেছি।

মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের প্রথম প্রহরে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানাবেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী। এরপর সর্বস্তরের মানুষের জন্য উন্মুক্ত থাকবে শহীদ মিনার।

সারাদিন/২০ফেব্রুয়ারি/টিআর