বিএনপি যে কোন পথে হাঁটছে তা আমার জানা নেই : ওবায়দুল কাদের

বিশেষ প্রতিবেদকবিশেষ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৪:০০ অপরাহ্ণ, ১৬/০২/২০২০

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘দুইটি প্রধান রাজনৈতিক দলের সাধারণ সম্পাদক কোন একটি বিষয়ে কথা বলতেই পারেন। এটা কোন অপরাধ নয়। এটা গোপনীয় কোন বিষয়ও নয়। তবে বিএনপি যে কোন পথে হাঁটছে তা আমার জানা নেই। কারণ পথ মাঝে মাঝে বেকে যায়। বেঁকে গিয়ে কোথায় গিয়ে ঠেকবে তাতো বলতে পারি না।’

রোববার (১৬ ফেব্রুয়ারি) সচিবালয়ে নিজ দফতরে সাম্প্রতিক বিষয় নিয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে আলাপ কালে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

বিএনপির নেতাদের প্রতি প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, ‘তাদের কেউ বলছেন আন্দোলন করে বেগম জিয়াকে মুক্ত করবেন। আবার কেউ বলেন মানবিক কারণে তার মুক্তি দেওয়া হোক। আমার প্রশ্ন হচ্ছে- তারা কোন পথে মুক্তি চান তা আগে ঠিক করতে বলুন।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমি আগেই বলেছি এটা রাজনৈতিক মামলা নয়, এটি দুর্নীতির মামলা। এ বিষয়ে তারা প্রধান বিচারপতির সঙ্গে কথা বলতে পারেন। জামিন বা মুক্তির বিষয়টি আদালতের ব্যাপার। আর যদি প্যারল চান, তবে সেটা হতে পারে। সব দেশেই কিছু কারণ বিবেচনায়, কিছু নিয়মে প্যারল বিষয়টি রয়েছে। এ ক্ষেত্রে তারা যদি সে আবেদন করে আর যদি তাদের আবেদন যুক্তিযুক্ত হয় তবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় ও সরকার বিষয়টি দেখবে।’

তিনি বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিন নিয়ে পর্দার অন্তরালে কিছু হচ্ছে না বলে দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি সরকারের বিষয় নয়, এটি আদালতের বিষয়। তবে তারা (বিএনপি) প্যারোলে মুক্তির জন্য আবেদন করতে পারেন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে আবেদন করলে সরকারি বিধিবিধান অনুসারে বিবেচনা করা হবে।’

মন্ত্রিসভার রদবদল প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মন্ত্রিসভা একটা রদবদলের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। সম্প্রতি একটা রদবদল হয়েছে। তাই খুব তাড়াতাড়ি মন্ত্রিসভায় আবার পরিবর্তন হওয়ার সম্ভাবনা খুব কম।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, যেহেতু রদবদলটা এই মুহূর্তে হয়েছে পারফরম্যান্স বা গতির জন্য। সেখানে নতুন করে মেজর কোনো পরিবর্তন বা সম্প্রসারণ এই মুহূর্তে হবে না। এটা হয়তো আরও পরে হতে পারে।

তিনি বলেন, কাজের গতির জন্য সম্প্রসারণটা হচ্ছে। হয়তো আমি যে স্থানে আছি প্রধানমন্ত্রী মনে করছেন আমাকে অন্য আরেকটা স্থানে দিলে পারফরম্যান্সটা আরও ভালো হবে। এটা প্রধানমন্ত্রীর এখতিয়ার। এখানে প্রমোশন-ডিমোশনের কিছু নেই।

সারাদিন/১৬ফেব্রুয়ারি/টিআর