পর্দা নামল বাণিজ্য মেলার

বিশেষ প্রতিবেদকবিশেষ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৩:৩৬ অপরাহ্ণ, ০৭/০২/২০২০

পর্দা নামল ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার ২৫তম আসর। তবে ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন অভিযোগ আর হতাশায় বাণিজ্য মেলার কেনা বেচা ভালো হয়নি।

এর মধ্যে ভোটের একটি কারণ হতে পারে। সেই কারণে বিঘ্ন ঘটায় মেলায়। পরপর দুই দফায় বাড়ানো হয়েছিল এবার মেলার সময়। কিন্তু ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে পারেনি ব্যবসায়ীরা।

বৃহস্পতিবার ৬ (ফেব্রুয়ারি) মেলাপ্রাঙ্গণ ঘুরে অন্য বছরের তুলনায় মেলার শেষ দিনে ভিড় কম দেখা গেছে।

ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন অভিযোগ আর হতাশা নিয়ে সারাদিন ডট নিউজকে বলেন, এবার আমাদের স্টলগুলোতে ক্রেতার সংখ্যা আশানুরূপ ছিল না।

পণ্যের সমাহারে সাজানো মিয়াকোর স্টলের ইনচার্জ আলমগীর হোসেন বলেন, মেলার শেষদিকে আমাদের আশা থাকে ক্রেতারা কিনবে। আর এতে অনেক ভিড়ও লক্ষ্য করা যায়। কিন্তু এবারই এর ব্যতিক্রমী হলো। মেলার শেষদিনে এসেও আমরা অলস সময় কাটিয়েছি। তবে আমরা ৫০ শতাংশ ছাড়ও দিয়েছিলাম। কিন্তু প্রত্যাশিত ভাবে ক্রেতা পাইনি।

ঘড়ি বিক্রয় প্রতিষ্ঠান এফ জি ফ্যাশন জুয়েলারির বিক্রয় প্রতিনিধি রুহুল আমিন বলেন, মেলায় এবার ছোট দোকানগুলো পুরোই ফাঁকা। মেলার সময়সীমা বাড়ানো হলেও মাঝারী ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা এবার তেমন লাভ করতে পারেনি। আর শেষদিন তো মেলায় লোকজন খুবই কম ছিল।

খিলক্ষেত থেকে মেলায় আসা ব্যবসায়ী জুয়েল হোসেন বলেন, এবছর মেলায় দেখলাম বিদেশি পণ্যের স্টলগুলো অনেক কম। আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা হিসেবে এই ব্যাপারটি নেতিবাচক। আবার দেশি পণ্যের স্টলগুলোতেও শুধু দেশের পণ্য বিক্রি হয় না।

কারুপণ্য শতরঞ্জির স্টলের সেলস এক্সিকিউটিভ কাজল বলেন, মূলত দুই দফায় মেলার সময় বাড়ানোর ফলেই ক্রেতা-দর্শনার্থী এবং ব্যবসায়ীদের মধ্যে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছে।

সারাদিন/৭ফেব্রুয়ারি/টিআর