‘আমাদের আছে অসংখ্য মেধাবী তরুণ-তরুণী, যা পৃথিবীর অনেক দেশেই নাই’

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, চতুর্থ শিল্প বিপ্লব বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে আলোচিত বিষয়। ইতিমধ্যে এই বিপ্লবের সাথে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে যাওয়ার প্রবণতা ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বময়। আমাদেরও বসে থাকলে চলবে না। আমাদের আছে অসংখ্য মেধাবী তরুণ-তরুণী, যা পৃথিবীর অনেক দেশেই নাই। সেই বিপুল-সংখ্যক মেধাবী ও সম্ভাবনাময় তরুণ সমাজকে যথাযথভাবে কাজে লাগিয়ে আমাদেরও বিশ্বমানের সফটওয়্যার ও সলিউশন উদ্ভাবনে কাজকে এগিয়ে নিতে হবে।

বৃহস্পতিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে ৩টায় রাজধানীর আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটি বসুন্ধরা (আইসিসিবি) এক্সপোর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

রাষ্ট্রপতি বলেন, বর্তমান যুগ হচ্ছে তথ্যপ্রযুক্তির যুগ। এই তথ্য প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে গোটা বিশ্ব দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশ পরিণত করতে বর্তমান সরকার নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। এবং তা বাস্তবায়নে সুনির্দিষ্ট কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। সরকারের আইসিটি বিভাগ ২০২১ সালের মধ্যে তথ্যপ্রযুক্তি খাতকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যেতে নিরলস-ভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

আমাদের দেশে উদ্ভাবিত বিশ্বমানের সফটওয়্যার ও আইটি সেবা দেশবাসীর সামনে তুলে ধরতে ‘বেসিস সফট এক্সপো ২০২০’ গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে বলে আমার বিশ্বাস জানিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, দেশের মেধাবী আইটি পেশাজীবীরা বিশ্বের উন্নত দেশগুলোতে তাদের উজ্জ্বল প্রতিভার স্বাক্ষর রেখে চলেছে। আমি মনে করি তথ্য প্রযুক্তি জ্ঞান সমৃদ্ধ প্রতিভাবান তরুণ দের দেশে কাজের সুযোগ সৃষ্টি করতে পারলে তারাও তাদের মেধাকে দেশের উন্নয়নে কাজে লাগাতে পারবে।

বেসিসের সদস্যগণ এখন বিশ্বের ৬০টিরও বেশি দেশের সফটওয়্যার ও আইটি সেবা রপ্তানি করে থাকে জানিয়েছে রাষ্ট্রপতি বলেন, এটা সত্যিই গর্বের।

সরকার ২০২৪ সাল পর্যন্ত কর্পোরেট ট্যাক্স মওকুফ, সফটওয়্যার ও আইটি সেবা রপ্তানি আয়ে ১০% নগদ প্রণোদনার উল্লেখ করে বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলতে এ আয়োজন গুরুত্বপূর্ণ ভমিকা রাখবে বলেও আমি মনে করি। তথ্যপ্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে বিশ্ব এখন এগিয়ে যাচ্ছে। এর সাথে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশ সরকারের তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ বিভিন্ন কর্মসুচি গ্রহণ করেছে, এবং তা বাস্তবায়ন করছে। চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের সাথে তাল মেলাতে আমাদের তরুন সমাজকে কাজে লাগাতে হবে কারণ তারাই আমাদের সম্পদ। আমাদের মেধাবী তরুণরা বাহিরে কাজ করছে , যথাযথ সুযোগ তৈরি করতে পারলে এরা দেশেই কাজ করতে পারবে।

বেসিস সফটএক্সপো ২০২০ প্রসঙ্গে বেসিসের সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীর বলেন, দেশের সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানগুলো দেশে বিদেশে অনেক বড়ো বড়ো প্রকল্পে নিজেদের সক্ষমতার পরিচয় দিচ্ছে। সেজন্য দেশের সকল কাজ বিদেশিদের দিয়ে করা গেলেও তা স্থানীয় কোম্পানিদের দিয়েই বাস্তবায়ন করতে হবে। অন্যথায় তথ্য নিরাপত্তা ঝুঁকিসহ দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে। এজন্য সরকারকে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের অনুরোধ জানান।

সৈয়দ আলমাস কবীর অনুষ্ঠানে সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের শিল্প মন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, এমপি এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব জনাব এন এম জিয়াউল আলম, পিএএ ।

উল্লেখ্য ট্রান্সফর্মিং লাইফ থ্রু ইনোভেশন-শ্লোগান নিয়ে আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটি বসুন্ধরা (আইসিসিবি)-তে শুরু হলো চার দিনব্যাপী দক্ষিণ এশিয়ার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতভিত্তিক সবচেয়ে বড় প্রদর্শনী ১৬তম বেসিস সফটএক্সপো ২০২০। চলবে ৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

সারাদিন/৬ ফেব্রুয়ারি/ আরটি