বিডিওএসএনের উদ্যোগে নারীদের জন্য ক্যারিয়ার টক

সারাদিন ডেস্কসারাদিন ডেস্ক
প্রকাশিত: ৬:০৬ অপরাহ্ণ, ০৫/০২/২০২০

লেখাপড়ার গন্ডি পেরোনোর আগেই নিজের লক্ষ্য এবং চাকুরির ক্ষেত্রের সম্যক অবস্থা সম্পর্কে ধারণা থাকলে বর্তমান ও ভবিষ্যতের প্রতিযোগিতামূলক চাকরির বাজারে টিকে থাকা সহজ হয়ে যায়। নারীদের সেই সময়ের জন্য প্রস্তুত করতে এবং সঠিক নির্দেশনা দিতে আজ বুধবার (৫ ফেব্রুয়ারি) বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্ক (বিডিওএসএন) আয়োজন করেছে একটি ক্যারিয়ার টক এবং নারীদের নিয়ে একটি জব এক্সপোজার ভিজিট।

ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি ও বিডিওএসএন এর যৌথ আয়োজনে উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট ৪৫ জন শিক্ষার্থীর উপস্থিতিতে আয়োজিত হয় একটি ক্যারিয়ার টক। ক্যারিয়ার টকের মূল বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দৈনিক প্রথম আলোর যুব কর্মসূচীর প্রধান মুনির হাসান। ভবিষ্যতের কাজের ধারা কেমন হতে পারে এবং সেজন্য কিভাবে প্রস্তুতি গ্রহণ করা যায় সে সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের সাথে একটি আলোচনামূলক সেশনে অংশ নেন তিনি।

মুনির হাসান বলেন, “আমাদের চারপাশে তথ্য প্রযুক্তির ধরণ এবং এর ব্যবহারের দ্রুত পরিবর্তন লক্ষ করা যাচ্ছে। ভবিষ্যতের কাজের ধারা কেমন হবে আমরা সঠিকভাবে বলতে পারিনা, কিন্তু ধারণা করতে পারি। ২০২২ সালের মাঝে পৃথিবী জুড়ে প্রায় ২ মিলিয়ন প্রোগ্রামার এর সংকট দেখা দেবে, কমপক্ষে ৬০% ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আইটি নির্ভর হয়ে যাবে, ৪০% ব্যবসায়িক লেনদেন হবে ইন্টারনেটের মাধ্যমে, সাইবার সিকিউরিটি নিয়ে তৈরী হবে প্রায় ৬ মিলিয়ন কাজের সুযোগ, ওয়েব ডিজাইনার বা ডেভেলপার ছাড়াও সুযোগ বাড়বে বিগ ডেটা, মেশিন লার্নিং কিংবা ডেটা মাইনিং এর কাজের। সুতরাং এই সুযোগের সদ্বব্যবহার তখনই সম্ভব যখন তথ্য প্রযুক্তির উপর থাকবে সম্পূর্ণ দখল”।

কিভাবে প্রস্তুত হতে হবে শিক্ষার্থীদের এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, “নিজের দক্ষতার এবং আগ্রহের জায়গা খুঁজে বের করতে হবে এবং প্রতিনিয়ত তা পরিচর্যা করতে হবে। আজ যে দক্ষতা প্রয়োজন কাল তার কদর নাও থাকতে পারে। তাই তথ্য প্রযুক্তির চলমান ধারার সাথে প্রতিনিয়ত হালনাগাদ থাকতে হবে যাতে সময়ের সাথে নিজের দক্ষতার পরিধি বাড়ানো যায়। নাহলে অনেক কাজের সুযোগ থাকলেও দেশের মানুষ কর্মহীন হয়ে পরবে আর সেই সুযোগগুলো বিদেশীরা নিয়ে নিবে”।

ক্যারিয়ার টকে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি ফ্যাকাল্টির ডীন প্রফেসর ড. মোঃ মাহফুজুর রহমান, এডভাইসর ও প্রফেসর ড. মোঃ আয়নাল হক, ড. মোঃ আমিনুল হক প্রমুখ।

সারাদিন/৫ ফেব্রুয়ারি