সাধারণ ছাত্রকল্যাণ পরিষদের গণঅনশন ৬ ডিসেম্বর

সারাদিন ডেস্কসারাদিন ডেস্ক
প্রকাশিত: ৯:২৩ অপরাহ্ণ, ২৯/১১/২০১৯

আশ্বাস দিয়েও চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা ৩৫ না করেই ৪১তম বিসিএস সার্কুলার প্রকাশ করার কারণে “বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্রকল্যাণ পরিষদের” ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। সংগঠনটি ৩৫ দাবিটি মেনে নিয়ে ৪১তম বিসিএসের নতুন সার্কুলার প্রকাশের দাবিতে গণঅনশন করবে।

যেটি আগামী ৬ ডিসেম্বর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিকেল ৩ টায় হবে বলে গণমাধ্যমকে জানানো হয়েছে।

ছাত্রকল্যাণ পরিষদের নেতারা বলছেন, বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্রকল্যাণ পরিষদ দীর্ঘদিন থেকে চাকরিতে আবেদনের বসয়সীমা বৃদ্ধিসহ যৌক্তিক ৪ (চার) দফা দাবি নিয়ে আন্দোলন করে আসছে। সেই ধারাবাহিকতায় গত ২৫ অক্টোবর ২০১৯ বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্রকল্যাণ পরিষদ শাহবাগে মহাসমাবেশ ও গণমিছিল করে। সেই অহিংস মিছিলে পুলিশ ১০ জনকে গ্রেফতার করে এবং ২ জনকে মারাত্মক আহত করে।

তখন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের আমাদের সাথে ১ নভেম্বর সাক্ষাতের সময় দেন এবং ১ নভেম্বর সাক্ষাত করে তিনি বলেন, “ প্রধানমন্ত্রীর সাথে চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা ৩৫ বিষয়ে আলোচনা হয়েছে, কিন্তু ব্যস্ততার কারণে উঁনি কোন সিদ্ধান্ত দিতে পারেন নি।

প্রধানমন্ত্রীর সাথে কথা বলে অতিশীঘ্রই তোমাদের সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিবেন বলে তিনি আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্তু অতীব দুঃখের বিষয় কোন প্রকার সিদ্ধান্ত না নিয়ে এবং চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা বৃদ্ধি না করেই ৪১তম বিসিএসের সার্কুলার প্রকাশ করা হয়েছে। যাহা প্রায় ২৬ লক্ষ শিক্ষিত যুবকদের সাথে এক ধরণের প্রতারনা ছাড়া আর কিছুই না। ৩৫ দাবিটি অন্তর্ভুক্ত না করে ৪১তম বিসিএসের সার্কুলার দেওয়াতে লক্ষ লক্ষ শিক্ষিত যুবক আজ ক্ষুব্ধ হয়ে পড়েছে। তাই বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্রকল্যাণ পরিষদের পক্ষ হতে ক্ষোভ প্রকাশ করা হচ্ছে এবং আগামী ৬ ডিসেম্বর থেকে ৪১তম বিসিএসে ৩৫ সহ ৪ দফা দাবি মেনে নেয়ার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাত চেয়ে গণঅনশন পালনের জন্য কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে।

যৌক্তিক দাবি মেনে না নেওয়া পর্যন্ত এই গণঅনশন চলবে বলেও জানানো হয়।

বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্রকল্যাণ পরিষদের অন্য দাবিগুলো- চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা বৃদ্ধি করে ৩৫ বছরে উন্নীত করতে হবে। অমানবিক আবেদন ফি কমিয়ে ৫০ থেকে ১শ টাকার মধ্যে নির্ধারণ করতে হবে, নিয়োগ পরীক্ষাগুলো জেলা-বিভাগীয় পর্যায়ে নিতে ও তিন থেকে ছয়মাসের মধ্যে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্নসহ সুনির্দিষ্ট নীতিমালা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করতে হবে।