নৌকায় ভোট দেয়ায় ঢাকাবাসীকে প্রধানমন্ত্রীর ধন্যবাদ

সারাদিন ডেস্কসারাদিন ডেস্ক
প্রকাশিত: ৪:৫২ অপরাহ্ণ, ০২/০২/২০২০

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমি ঢাকাবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই যে ভোটাররা নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আমাদের উত্তর ও দক্ষিণের মেয়রকে জয়যুক্ত করেছেন।

রোববার (২ ফেব্রুয়ারি) সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের সংগঠন আইডিইবির ২৩তম সম্মেলন উদ্বোধন করে এ কথা বলেন তিনি।

মুজিববর্ষে কেউ আর গৃহহীন থাকবে না জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, কৃষিজমি, জলাধারসহ পরিবেশ রক্ষা করে পরিকল্পনা নিতে হবে। ব্যবহারিক দক্ষতা কাজে লাগিয়ে মাঠপর্যায়ে দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের। দেশে নিবন্ধিত এ প্রকৌশলীর সংখ্যা ৪ লাখের মতো।

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের সংগঠন আইডিবির ২৩তম সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে দেশ গঠনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলেন প্রকৌশলীরা।

তিনি বলেন, প্রযুক্তির ওপর গুরুত্ব দিয়ে দক্ষ জনশক্তি গড়ে তুলতে কাজ করছে সরকার। প্রকৌশল শিক্ষার গুরুত্ব উপলব্ধি করে আমরা ১২টি বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করেছি। এসব বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দক্ষ জনশক্তি বের হলে দেশ আরও এগিয়ে যাবে। ২০৪১ সালের যে বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখছি, আশা করছি সেই বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হবে। বঙ্গবন্ধু যে স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে চেয়েছিলেন ২০৪১ সালে এ দেশের মানুষ সেই বাংলাদেশ পাবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এক সময় বাংলাদেশের কথা বললে ভিক্ষার ঝুলির কথা বলা হতো। সেই বাংলাদেশ আর নেই। গত ১০ বছরে বাংলাদেশের পরিবর্তন করতে সক্ষম হয়েছি। বাংলাদেশ এখন বিশ্বের সামনে উন্নয়নের রোল মডেল। এ বাংলাদেশ আগের বাংলাদেশ নয়। আমাদের একটি লক্ষ্য আছে, সেটি পূরণ করতে চাই। ২০২৪ সালে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে স্বীকৃতি পাবে। সেই পর্যন্ত আমাদের এখনকার পরিস্থিতি ধরে রাখতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, একটি দেশকে গড়ে তুলতে হলে দক্ষমানব শক্তির সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। বিশ্বের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে হলে আমাদের দক্ষ জনশক্তি গড়ে তুলতে হবে। শুধু দেশের জন্য নয়, যারা বিদেশে কাজ করবেন তাদেরও দক্ষ হয়ে যেতে হবে। তাহলে আমরা অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হব।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, মুজিববর্ষ সামনে রেখে নানা পরিকল্পনা নিচ্ছে সরকার। পরিবেশ রক্ষার বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করে প্রকৌশলীরাও এ উদযাপনের অংশ হতে পারেন।

তিনি বলেন, যখন উদযাপন করবেন তখন সবচেয়ে বড় কর্মসূচি হবে পরিবেশ-প্রতিবেশ রক্ষায় বিশেষ উদ্যোগ নেয়া। ব্যাপকহারে বৃক্ষরোপণ করুন। আপনারা সারাদেশে কাজ করেন সেটা লক্ষ্য করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ১০০ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ছি, যাতে করে কৃষিজমি ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। আমাদের দেশে বিশাল সংখ্যক জনগোষ্ঠী বাস করে। খাদ্য উৎপাদনের পাশাপাশি বসবাসের ব্যবস্থা করতে হবে। আমরা চাই একটি মানুষও যেন গৃহহীন না থাকে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে প্রতিটি গৃহহীন মানুষ বসবাসের উপযোগী একটি ঘর পাবে মুজিববর্ষে, সেটি আমাদের লক্ষ্য। স্বাস্থ্যসেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিয়েছি। মানুষের মৌলিক চাহিদা একে একে পূরণ করছি। আপনাদের কর্মক্ষেত্রের পরিবেশ রক্ষা উন্নয়ন যেন ভালোভাবে হয়, সেটি লক্ষ্য করবেন। অর্থনৈতিক অঞ্চল হলে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের কাজের ক্ষেত্র বাড়বে।

সারাদিন/২ফেব্রুয়ারি/টিআর